আমি দুরন্ত বৈশাখী ঝড়

  •  
  •  
  •  
  •  

কত কিছুই বলবো বলে জমিয়ে রাখি
জমিয়ে রাখি সন্ধ্যাতারা, রাতের খামে,
জমিয়ে রাখি হঠাৎ যদি পথিক থামে!
হঠাৎ যদি চোখের ভেতর চোখের মায়ায়,
বৃষ্টি নামে খানিক নগদ, খানিক বাকি,
তার জন্যই আমায় আমি জমিয়ে রাখি।

আমার জন্মদিন ঘটা করে পালন করার মতো কেউ হয়ে উঠিনি এখনো। হয়ে উঠতে পারবো কিনা জানিনা। শুধু জানি, এ জীবন অর্থবহ করার জন্য। এ জীবন লড়ে যাবার জন্য। এ জীবন সকল ঘাত প্রতিঘাত, বাধা বিঘ্ন সরিয়ে সামনের দিকে এগিয়ে যাবার জন্যে। পারিবারিক ভাবে খুব ছোট্ট করে, খুব কাছের, ভালোবাসার, অত্যন্ত আপনজনদের নিয়ে জন্মদিন পালন করতে পেরে আমি আনন্দিত। তাদের প্রতি ভালোবাসা অবিরাম।

মানুষ মানুষের কাছে পুরোনো হয়ে গেলে তা নিয়ে আর গল্প করতে ইচ্ছে হয়না। সে গল্পে বিষাদ জন্মে। ঠোঁট ফেটে শব্দ বের হতে চায় না। যে জমানো কষ্টে পেট ফুলে আছে, লোকে তাকে সুখ ভাবে। কেউ যদি খালি চোখেই কারো ভেতরটা দেখে ফেলতে পারতো, তাহলে নিশ্চিত সে তাকে নিজের দাস বানিয়ে রাখতো। পরাধীনতা সবচে বড় দুঃখ। লোকে দেখে একটা বাজে অতীত মানুষটা কাটিয়ে এসে এই জীবনে সুখে আছে, আসলেই কি আছে? মানুষ কি তার জীবনের একটা অধ্যায় কখনো সম্পূর্ন ভুলে যেতে পারে? মাঝরাতে ঘুম না আসলে তার সেসব মনে পড়েনা? অন্য কারো দুঃখে নিজের অতীত মনে পড়েনা? বিষাদ জাগেনা? জীবনের মায়া কাটতে থাকে আস্তে আস্তে। জীবনের মায়া হুট করে কাটাবার কোনো ব্যবস্থা নেই কেনো? সে যাই হোক, ফিরে আসি আমার জনম দিন কথনে।

ভালোবাসা অবিরাম তাদের প্রতিও যারা হাজার ব্যস্ততার ভীড়ে একটু সময় বের করে ভার্চুয়াল শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। আর যারা কাছের হওয়া সত্যেও, কাছে থাকা সত্যেও মুঠোফোনে শুভেচ্ছা জানানোর মতো সময়টুকুও বের করতে পারেন নাই তাদের জন্যও ভালোবাসা। প্রতি বছর একটু একটু করে জানান দিচ্ছে আমাদের অবস্থান একে অন্যের প্রতি, আমাদের দায় একে অন্যের প্রতি, আমাদের দায়িত্ব একে অন্যের প্রতি। যারা জানেন না তাদের জন্য ছোট্ট একটি তথ্য – ১২ই সেপ্টেম্বর শুধু আমার জন্মদিন না। ১২ সেপ্টেম্বর আমার নতুন অফিসেরও জন্ম দিন। ১২ই সেপ্টেম্বর আমার সপ্ন পূরন হবার দিন। ১২ই সেপ্টেম্বর আমার বাবা-মায়ের জন্য আল্লাহ প্রদত্ত শ্রেষ্ঠ উপহার প্রাপ্তির দিন। বন্ধু-অবন্ধু সকলের প্রতি ভালোবাসা, অবিরাম। বিশেষ কাউকে ধন্যবাদ দিয়ে ছোট করতে চাই না, বন্ধু সে না থাকলে জন্মদিনকে জন্মদিনের মতো মনে হতো না। সেই নিরিন্তর পরিশ্রম করে যাওয়া রোবটকে মানুষ বানানোর কারিগকে অনেক অনেক অধন্যবাদ।

১৩/০৯/২০২০, ১১.১৩ PM

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *