উপ নীতি দেশ

  •  
  •  
  •  
  •  

উপদেশ হিসেবে কথায় আছে – ‘কানাকে কানা, খোড়াকে খোড়া বলিও না। কারন তাঁরা কষ্ট পাইবে’। আবার নীতিকথা হিসেবে প্রবাদে আছে – ‘সদ্য সত্য কথা বলিবে’। পুরোটাই বারমুডা ট্রায়াঙ্গেলের মতো অবস্থা। দুইটি কথাই একে অন্যের সাথে রীতিমতো সাংঘার্ষিক। চালাক’রা উপরের দু’টিকেই ভালভাবে ফলো করে। কিভাবে করে? ‘ঝোঁপ বুঝে কোঁপ মারো’ থিওরি অ্যাপ্লাই করে তাঁরা। অর্থাৎ যেখানে যেটা প্রযোজ্য তখন সেটাই এপ্লাই করে। অবশ্য দুইটি ঘটনা যদি একই সময়ে উপস্থিত হয় তখন চালাকির বিচক্ষণতায় ভর করে বলে তাঁরা বলে- ‘নো কমেন্টস’। সবই ‘প্রয়োজন’। প্রয়োজনেই সব কিছু হয়। প্রয়োজনেই কেউ কাউকে খুন করে, আবার প্রয়োজনেই কেউ কারো জীবন বাঁচায়। মিথ্যা বলা মহাপাপ। কিন্তু প্রয়োজনে মিথ্যা বলা জায়েজ!

এখানেও সেই ‘প্রয়োজন’! প্রয়োজনেই কেউ কাছে আসে, প্রয়োজনেই কেউ দূরে সরে। প্রয়োজনেই কেউ কাউকে সম্মান করে, প্রয়োজনেই কেউ কাউকে অসম্মান করে! প্রয়োজনেই কেউ কারো হাত ধরে, প্রয়োজনেই কেউ সেই হাতকে ফেলে নতুন হাত ধরে নতুন পৃথিবী দেখে। প্রয়োজনেই কেউ ঘুষ খায়, আবার সেই প্রয়োজনেই সেই ঘুষের টাকা থেকে মসজিদে টাকা দান করে! তবে এসব প্রয়োজন ফ্রয়োজন ততক্ষণই ভাল লাগে যতক্ষণ নিজের স্বার্থে আঘাত না করেল। আঘাত করলেই সেই ‘প্রয়োজন ‘খারাপ হয়, গুনাহ হয়, পাপ হয়। সে মানুষ তখন ধর্মাবতার হয়ে উঠে। সেটাও কিন্তু ‘প্রয়োজন’ মশাই। প্রয়োজনেই রেস্টুরেন্ট ফোন ফেসবুকে চেনা মানুষ পরিবর্তন হয়ে যায়। প্রয়োজনেই জন্মদিন আয়োজনে চতুর্থ মানুষ হিসেবে নতুন কেউ থাকে! প্রয়োজনেই সব প্রয়োজন। প্রয়োজনেই সব অপ্রয়োজন।

২৬/০৯/২০২০, ১১.৪৮ PM

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *