কাঁদব না

  •  
  •  
  •  
  •  

সুবর্ণা মুস্তফাকে অপি করিম প্রশ্ন করেছিলেন,
– আচ্ছা, হুমায়ূন ফরিদীর সাথে আপনি বাইশ বছর তার সহধর্মিণী ছিলেন, হঠাৎ কি হয়েছিল যে আপনারা আলাদা হয়ে গেলেন?
সুবর্ণা মুস্তফা ছোট্ট করে উত্তর দিয়েছিলেন,
– বন্ধুত্বটা নষ্ট হয়ে গিয়েছিল।
তারপর আস্তে করে বলেছিলেন,
– হুমায়ূন ফরিদী যেহেতু আমাদের মাঝে আর নেই কাজেই আমি আর বলতে চাইনা এর চেয়ে বেশি কিছুই। কারণ যদি আমি বলি তাহলে ওর কথা বলার জায়গাটা নেই।
আমি অবাক হয়ে দেখেছিলাম নিজের প্রাক্তনকেও কিভাবে সম্মান করতে হয়।

এই সম্মানটা আসে কিভাবে জানেন? বন্ধুত্ব থেকে। কারিনা কাপুরের কাছে আরবাজ খানের সাথে সদ্য ডিভোর্স হওয়ার পর বলিউড সুপারস্টার মালাইকা অরোরা বলেছিলেন,
– ডিভোর্স হওয়ার আগের রাতেও আমরা আলোচনা করেছিলাম, আমরা কি একসাথে থাকতে পারি, শুধরে নিতে পারি নিজেদেরকে? তারপর দেখলাম – না, সম্ভব না। বাট উই স্টিল হ্যাভ গুড ফ্রেন্ডশিপ।
দুটো সাক্ষাৎকারেই একটা জায়গায় মিল পেয়েছিলাম। মালাইকা আর সুবর্ণা দুজনেই বলেছিলেন – কাছে থেকে সম্মান হারিয়ে ফেলার চেয়ে দূরে গিয়ে সম্মান রাখাটা বেশি সম্মানের। তারা সেই স্বামীরূপী প্রেমিককে মিস করেননি, মিস করেছেন বন্ধুত্বের সম্পর্কটা।

মানুষ আসলে প্রেমিক প্রেমিকা খোঁজে না, মানুষ খোঁজে বন্ধু। প্রেমিকের কাছে প্রাক্তন প্রেমিকের কথা যতটা না সহজে বলা যায়, তারচেয়ে বলা যায় বন্ধুর কাছে। এজন্য কেউ যখন সুবর্ণার মতো বাইশ বছরের সম্পর্ক, মালাইকার মতো ষোলো বছরের সংসার ছেড়ে যায় তখন আমরা ভাবি – আর একটু সহ্য করা যেতো না? কিন্তু কীসের অভাবে কেউ ছেড়ে যায় সে সব তো আর আমরা বুঝিনা। তিক্ত হলেও সত্য – প্রেমিক ছাড়া একজীবন বেঁচে থাকা যায়, বন্ধু ছাড়া যায়না। এজন্য প্রেমিকের এগিয়ে দেয়া হাতে হাত রেখেও আমরা খুঁজে বেড়াই সেই বন্ধুটিকে যাকে বলা যায় – প্রথম প্রেম ভাঙার কষ্ট, প্রথম চুমুর অনুভূতি, প্রথম স্পর্শের আবেগ। আমাদের জানাতে ভালো লাগে আমাদের অনূভুতিগুলো আসলে কেমন! জীবনে প্রেম ছাড়া বেঁচে থাকা কঠিন না, কঠিন একজন কাছের বন্ধু ছাড়া বেঁচে থাকাটা। আপনি হয়তো বলবেন,
– দিনশেষে মানুষ আকাশের মতো একা।
কিন্তু আমি বলবো,
– মানুষ আকাশের মতো একা হলেও আকাশ জুড়ে ভেসে থাকা মেঘদলের মতো দোকলা। আকাশ নিজের জন্য মেঘ খুঁজে পেলে আপনি একজন বন্ধু পাবেন না কেন?

১৯/০৭/২০২০, ১১.৪৯ PM

উৎসর্গ পত্র – “সদ্য নিজেকে খুঁজে পাওয়া আপনাকে।”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *