ক্ষুদে সান্ধ্যবার্তা

  •  
  •  
  •  
  •  

এই শহরে কোন এক আকাশ ছোঁয়া দালানের ওপাশে টুপ করে ডুব দেয় সূর্য। হাঁটতে হাঁটতে হয়তো চোখে পড়ে কখনো। অলিগলিতে সন্ধ্যা নামার আগেই সন্ধ্যা নামে। বিরামহীন একটানা হাওয়ায় ভাসতে ভাসতে পথ হারিয়ে ফেলে একে অন্যকে দেয়া ক্ষুদে সান্ধ্যবার্তা গুলো। কেবলই মনে হতে থাকে কাউকে কাছে পাবার আকাঙ্খা ছিলো। বলা হয়নি। পাওয়া হয়নি। ছুটে যাওয়া তারা দেখে চাওয়া হয়নি। আরো গভীরে গেলে গভীর অন্ধকারও হারিয়ে যাবে। তবুও এতোকিছু ভাবতে নেই। ক্ষিধে লাগলে খেয়ে নিতে হয়। ঘুম পেলে ঘুমিয়ে যেতে হয়।

ইচ্ছে হলে কখনো সখনো ছাদের কোনে চুপচাপ বসে থাকতেও বাঁধা নেই। গান শুনে, মুভি দেখে কিংবা গুনগুনিয়ে দিন খারাপ যাচ্ছে তা তো বুঝা যায়না। শুধু প্রতি রাতে আসা দুঃস্বপ্নগুলো আটকানো যাবেনা কোনভাবেই। ইদানিং বেশ বিষণ্ণতায় ভুগি। চারপাশে কতো মানুষ। আমার কেউ নেই। কেউ রাগ করলে তার রাগ ভাঙাবার মানুষ আছে। আমি তো রাগ করিনা, ভাঙাবার মানুষও নেই তাই। প্রতি দীর্ঘ রাত জেগে জেগে খুব ক্লান্ত লাগে। স্বপ্ন, বাস্তব, হতাশা, দুঃখ, কষ্ট সব মিলেমিশে কেবল শূন্যতাই সৃষ্টি করে।

এখন এখানে কেবলই রাত, জোছনা নেই, বৃষ্টি নেই, প্রবল অন্ধকারে পরম নির্ভতায় কারো হাত ধরে বসে থাকার কেউ এই। যখন নিজের অস্তিত্ব আর কারো কাছে থাকেনা তখন কেবলই মৃত মৃত বোধ হয়। অথচ কোন মৃত মানুষও কারো না কারো ভেতর তার স্মৃতি রেখে যায়। এমন রাত ভাঙা, দিন ভাঙা চলমান সময়ে এতো বিশাল একাকিত্ব কোত্থেকে আসে আমার জানা নেই। আমি কেবল জানি আমি কারো সকাল হতে চেয়েছি আবার অন্ধকারেও তার পাশাপাশি হাঁটতে চেয়েছি।

০৭/০৭/২০২০, ১১.২০ PM

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *