ডেস্পো ডিপ্রো

  • 1
  •  
  •  
  •  
    1
    Share

ডিপ্রেশন থেকে শক্ত হয়ে ওঠা মানুষ গুলোকে কখনো কারো সামনে দাঁড়িয়ে থেকে কাঁদতে দেখবেন না। বরং তাদের কে সারাদিন প্রাণোচ্ছল হাসিখুশি দেখবেন। আপনার পাশে থেকে আপনাকেই সাহস যোগাতে দেখবেন। প্রাণ খুলে হাসার অভিনয়টা তারা পুরোদমে শিখে ফেলে। নিজেকে পৃথিবীর সবচেয়ে সুখী মানুষ হিসেবে সবার কাছে নিজেকে উপস্থাপন করতে জানে। এরা একা কাঁদে লুকিয়ে। গভীর রাতে। সবার সামনে হাসতে হাসতে এরা যখন খুব মানসিক ভাবে টায়ার্ড ফিল করে তখনই কাঁদে। কান্নাটা কিন্তু শুধু রাতের অন্ধকারের জন্যই বরাদ্দ। সকালে সূর্য উঠার সাথে সাথে এরা আবার মোটিভেট হয়।আবার সেই প্রাণোচ্ছল হাসিমাখা মুখ নিয়ে সবার সামনে গিয়ে উপস্থিত হয়। কোনোভাবে একবার ডিপ্রেশন কাটিয়ে উঠতে পারলে,সেই মানুষগুলোকে আর কেউ কোনো কিছুতেই দমাতে পারেনা।তাই জীবনে একবারের জন্য হলেও কঠিন ডিপ্রেশনে ভোগা উচিত।

প্রতিদিন খুব ছোট্ট করে খুব বড় রকমের যে মিথ্যা কথাটা আমি বলি, সেই মিথ্যা কথাটার নামঃ
– “ভালো আছি”।
“ভালো নেই” বললেই বিপদ। অন্য পাশ থেকে প্রশ্ন আসবেঃ
– “কি হয়েছে? কেন ভালো নেই?”
মাঝে মাঝে আমি নিজেও জানি না, আসলেই কি হয়েছে। লক্ষণ দেখলেই ডাক্তার বলে দিতে পারে যে কি হয়েছে। শরীরের অসুখের ডাক্তার আছে ঠিকই, কিন্তু মনের অসুখের কোন ডাক্তার নেই।

“কেন ভালো নেই” – এই প্রশ্নের উত্তর দেয়াটাই ভারী কঠিন, বড় শক্ত। আমি কঠিন ভয় পাই। কি দরকার কঠিন কে ডেকে আনার। তার চেয়ে বরং টলমল করতে থাকা চোখে অন্য দিকে তাকিয়ে দাঁতে দাঁত চেপে বলে দেইঃ “ভালো আছি”। “ভালো আছি” নামক ঐ ছোট্ট মিথ্যাটা বলাই সহজ। ঐ টলমল করতে থাকা চোখের পানি লুকানোটাই অনেক সহজ। কঠিন শুধু কাউকে বুঝানো। কঠিন শুধু অমন মানুষ পাওয়া, যাকে বুঝানোর দরকার হবে না, নিজ থেকেই বুঝে ফেলবে সব।

০৭/০৬/২০২০, ০৮.১৭ PM

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *