তালাকনামা

  •  
  •  
  •  
  •  

তালাক সম্পর্কে ফেসবুকে মোটা দাগে বেশ কিছু লেখা পাই, যেখানে তালাকের মূল কারন হিসাবে স্বামী কতৃক যৌতুক চাওয়া, মারপিট করা আর পরকীয়াকে হাইলাইট করা হয়। ইন্টারেস্টিংলি, আমার লাইফে যে কয়টা তালাকের ইস্যু হ্যান্ডেল করেছি, এর মধ্যে উপরের ইস্যুগুলি সর্বোচ্চ ৩% হবে, আমার হ্যান্ডেল করা কেসগুলির বেশীরভাগই ছিল স্বামী-স্ত্রীর মনের মিল না হওয়া, আত্মীয়দের (বিশেষ করে ছেলে বা মেয়ের মায়ের) খোচাখুচি বা অযাচিত হস্তক্ষেপ, বন্ধুদের উসকানি (মেয়েদের ক্ষেত্রে বেশী হয়) আর কিছু কেস যা কোন ক্যাটেগরিতেই পড়েনা, ‘অজ্ঞাত রোগে মৃত্যু’র মত অবস্থা আরকি।

তালাকের ক্ষেত্রে আমার একটা ইন্টারেস্টিং অবজার্ভেশন আছে, লক্ষ্য করেছি আমার ক্লায়েন্টদের মধ্যে অনেকেই বেশ কম বয়সে প্রতিষ্ঠিত হয়ে বিয়ে করেছিলেন, এরপর দশ বারো বা আরো বেশী বছর সংসার করার তা ভেঙ্গে গেছে। এখানে কিভাবে কি হল সেটা নিয়ে আমি নিজেও কনফিউজড, তবে একটা থিয়োরী দিতে পারি। মেয়েরা বিয়ে ব্যাপারটাকে সম্ভবত ফিক্সড ডিপোজিট হিসেবে দেখেন, মানে তারা ধরে নেন যে বিয়ে হবার পর স্ত্রী এফোর্ট দিক বা না দিক, স্বামী তাকে এক নাগারে ভালবেসে যাবেন, ভালোবাসা কখনো কমবে না, সময়ের সাথে সাথে তা কেবল বাড়তে থাকবে, ইত্যাদি ইত্যাদি!

অপরদিকে নিজে একজন পুরুষ হিসেবে বলতে পারি, পুরুষদের ভালোবাসায় জোয়ার-ভাটা খেলে, স্ত্রীর ওপর সন্তুষ্ট হলে বা তার কোন কিছু পছন্দ হলে পুরুষদের ভালোবাসা উথলে উঠে, আবার কোন কিছু অপছন্দ হলে কমা শুরু করে, এজ এ ম্যাটার অফ ফ্যাক্ট, ইভেন কোন একটা সামান্য কথা বা কাজের ফলে বহু বছর ধরে সঞ্চিত ভালোবাসার সবটুকু মুহূর্তে ফুটো বালতির পানির মত হারিয়ে যেতে পারে! জ্বী, পুরুষেরা আসলে মেয়েদের মতই কমপ্লেক্স, যদিও কিছু বলদ – “পুরুষদের সহজ, আর মেয়েদের জটিল বলে!” নাহ বলার কিছু নেই, বিবাহিত হয়ে থাকলে পুরুষ আর নারী এই দুজনের আলাদা মানসিকতার কথাটা মনে রাখুন, আখেরে উপকৃত হবেন।

১০/০৭/২০২০, ১১.২৭ PM

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *