ফার্মেসী

  •  
  •  
  •  
  •  

অনেকে মনে করে থাকেন ডাক্তাররা রোগীদের ভালমত দেখেন না বা সময় নিয়ে কথা বলেন না বা একগাদা টেস্ট দেন দেখে রুগীরা ফার্মেসীওয়ালা, কোয়াক আর কবিরাজদের শরনাপন্ন হন। এরকম মনে করার পেছনে কিছুটা যৌক্তিকতা অবশ্যই আছে, তবে আসল কাহিনী ভিন্ন। আসল কাহিনী জানার আগে লক্ষ্য করুন এসব ফার্মেসীওয়ালা, কোয়াক আর কবিরাজদের কথা শুনে কারা? মূলতঃ নিম্নবিত্ত আর নিম্ন মধ্যবিত্তরা, রাইট? কখনো দেখেছেন কোন শিক্ষিত মধ্যবিত্ত (আমি শিক্ষিত গবেটদের কথা বলছি না!) এদের কাছ থেকে চিকিৎসা করাতে যেয়ে ধরা খেয়েছে?

মূল কাহিনী হচ্ছে নিম্নবিত্ত আর নিম্ন মধ্যবিত্তের কাছে চিকিৎসকরা হচ্ছেন ‘বুর্জোয়া’ শ্রেনীর প্রতিভূ, ‘কশাই’, দূরের মানুষ, যাদের সাথে মন খুলে গফসফ করা যায়না। রোগের কথা শুনে যারা আহা-উহু করেন না, যারা কলমের এক খোচায় রুগীদের সারাদিনের ইনকাম খেয়ে ফেলেন। এই শ্রেনীর কাছে ডাক্তারদের চেয়ে ফার্মেসীওয়ালা, কোয়াক আর কবিরাজেরা হাজারগুনে ভাল। গফসফ করা যায়, চা-বিস্কুট খাওয়ায়। যে ঔষধ যেভাবে চায় লিখে দেয়, বড় বড় ডাক্তারদের ভুল কত সহজে ধরে ফেলে। কত সুন্দর করে রোগ অবশ্যই ঠিক হয়ে যাওয়ার কথা বলে। নিজের ফী তো আর নেয় না, নিলেও কম নেয়। ঔষধের দাম তো নেবেই, না হলে বেচারারা চলবে কিভাবে? জী, এটাই আসল কাহিনী।

০১/০৩/২০২০, ১১.২৭ PM

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *