ফেইক আইডি

  •  
  •  
  •  
  •  

সেদিন গভীর রাতে ফ্রেন্ডলিস্টের এক ক্লোজ ছোটো বোন আমারে মেসেজ দিয়ে বলে,
– ‘স্যরি ভাইয়া।’
আমি তো অবাক,
– স্যরি কেন হঠ্যাৎ?
মেয়ে বললো,
– ‘আসলে আপনাকে একটা সিক্রেট বলি। আপনি দুই মাস আগে ফোনে যে মেয়ের সাথে কথা বলতেন সেই মেয়ে আমি ছিলাম!’
– ওএমজি, কি বলো? কোন মেয়ে?
– ঐ যে মেডিকেল পড়ুয়া। ফাবিহা ইসলাম। ঐটা আমি ছিলাম। মানে আমার ফেইক আইডি!
– ওহ শিট, ঐ আইডির ছবি কার ছিলো?

– আমার বড় আপুর এক ফ্রেন্ডের।
– তো এতোদিন পর এখন এটা কেন বলছো?
– এমনিই। আপনার একটা পোস্ট পড়তেছিলাম হঠ্যাৎ করে মনে হলো লুকিয়ে না রেখে বলেই ফেলি। মনে আছে আমাদের রিলেশন হতে গিয়েও হয়নি? আপনার জন্যই। একদিন সারারাত ফোন ওয়েটিং পাওয়াতে রেগে গিয়ে আপনি যদি ব্লক না দিতেন তাহলে হয়তো আজ আমরা বিএফ জিএফ থাকতাম।
– যাক সেদিন ব্লক দিছিলাম ভালো হইছিলো। বাঁইচা গেছিলাম। নাইলে অন্য একজনকে ভেবে একটা ফেইক আইডির সাথে রিলেশন করে ফেলতাম।
– হুম। এই যে এখন বলে দিলাম আপনি কি রাগ করলেন?
– একটু তো করেছিই। কাজটা তুমি ঠিক করোনি। কয়দিন আগে জানলেও এভাবে ধোকা দেয়ার জন্য আমি তোমাকে ব্লক দিতাম। বাট এখন আর ওসব ভাবিনা। নতুন প্রেমিকা হইছে আমার। আমি ওকে নিয়েই হ্যাপি।

– তাই নাকি? কনগ্রাচুলেশনস। নাম কি আপুর?
– ওর নাম আনিকা। আর হ্যা, আমাদের মধ্যে যা হইছিলো আমি ভুলে গেছি, তুমিও ভুলে যাও। আনিকা যেন না জানতে পারে। তাইলে আমি শেষ। ওকে?
মেয়েটা অনেক্ষন চুপ করে থেকে বললো,
– ‘ইয়ে মানে ভাইয়া আনিকা জানলেও আসলে সমস্যা হবে না।’
– মানে কি? কেন?
– কারন ঐটাও আমারই আরেকটা ফেক আইডি

০৭/০৮/২০২০, ১০.৪৭ PM

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *