বিষময় বিস্ময় (পঞ্চম পর্ব)

  •  
  •  
  •  
  •  

তেরো
বলা বাহুল্য রাণুর বাবা কবিগুরুর চিঠি পেয়ে মহাখুশী হতেন। নোবেল বিজয়ী কবি বলে কথা। এভাবে শীত গ্রীষ্ম বসন্ত সবসময়ই রাণুর বাবাকে তিনি চিঠি লিখে তিনি রাণুর খোঁজ খবর করতেন। কিন্তু রবীন্দ্রনাথের সুখ বেশিদিন রইলো না। একটা পর্যায়ে নানান মানুষ নানান কথা বলতে শুরু করলো। লোকের কান ভাঙানিতে আর টেকা যাচ্ছিল না, আর এতে রবীন্দ্রনাথ বাধ্য হয়ে একটা অদ্ভুত সিদ্ধান্ত নিলেন। তিনি নিজেই রাণুর বিয়ের ব্যবস্থা করলেন। এবং মহা ধুমধামের সঙ্গে রাণুর বিয়ে দিলেন। রাণু এতে মনে মনে কবিগুরুর উপর ভীষণ চটেছিল, যদিও সেভাবে কিছুই বলে নি।

চৌদ্দ
যথারীতি সে আমাকে মাঝে মাঝেই ফোন দিত। বেশ লম্বা সময় নিয়ে ইনিয়ে বিনিয়ে এ প্রসঙ্গ থেকে ও প্রসঙ্গে কথা চালাচালির ফাঁকে ফাঁকে আমাকে খুব সুন্দর করেই বুঝিয়ে দিত তার মনের কথা, তার ভালোলাগার কথা। আমি সব বুঝেও নিরব থাকতাম। কারন একটাই, দূর থেকে সব মাঠের ঘাসের রঙ সবুজ। কিন্তু আসলেই কি তাই? আমার অতীত যেমন একদিকে আমাকে কুঁড়ে কুঁড়ে খাচ্ছিলো, তেমনি অপরদিকে মেয়েটার প্রতি মায়াও হচ্ছে। খারাপ লাগছিলো শেষটা কেমন হবে তা আঁচ করতে পেরে। মেয়েও নাচছোড় বান্দা। একের পর এক বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখান করে চলেছে এই আশায়, যদি আমি ‘রাজী’ হই। যদি আমি ‘হ্যা’ বলি। আসলে গভীর ভালোবাসায়, ভালোবাসার মানুষের পথের পানে তাকিয়ে থাকাতেও এক চরম সুখ বিরাজমান থাকে। গভীর রাতে ফোন দিত মেয়েটি। যখন সবাই ঘুমিয়ে পড়েছে। আসলে কত শুদ্ধতার শব্দ আর অনুভুতির স্পর্শরা সমর্পিত হয় রাতের আবেশে অথবা শাড়ির ভাজে। রং ও মানুষ নির্বাচনে বেশ সচেতন এই আমি ঘুরে ফিরে সেই লালেই আটকে যাই, থেমে যাই একদম। পুরোপুরি। সময়ে অসময়ে। ক্ষত বিক্ষত হয় আমার ভেতর। লাল রঙে রঞ্জিত হয় আমার অন্তর আত্না। একে তো বিশুদ্ধ ভাবেই রক্তাক্ত বলা যায়। তাই না?

পনেরো
রাণুর বিয়ে হয়ে যাবার পর রবীন্দ্রনাথ আবারও একলা হয়ে গেল। এভাবে কতদিন আর থাকা যায়? রবীন্দ্রনাথ আবারও চিঠি লিখতে বসলেন। এবার আর রাণুর বাবাকে না। রাণুকেই লিখলেন। চিঠিতে রাণুকে শান্তিনিকেতনে আসতে বললেন কবি। রাণু আসলো, তবে একা আসলো না, পুরো পরিবার নিয়ে রবীন্দ্রনাথের বাড়িতে এসে উঠলো। এতে রবীন্দ্রনাথের মন খারাপ হলো। ভেবেছিল রাণু একা আসবে, তাঁর কপালে হাত রাখবে, একান্ত গোপন কিছু কথা বলবে। তা আর হলো কই? কবি ভেতরে ভেতরে রক্তাক্ত হলে, ক্ষত বিক্ষত হলে। একেও তো বিশুদ্ধ ভাবেই রক্তাক্ত বলা যায়। তাই নয় কি?

[চলবে]

০৪/০৫/২০২০, ১১.৩২ PM

বিষময় বিস্ময় (প্রথম পর্ব)

বিষময় বিস্ময় (দ্বিতীয় পর্ব)

বিষময় বিস্ময় (তৃতীয় পর্ব)

বিষময় বিস্ময় (চতুর্থ পর্ব)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *