লুদমিলা পাভলিউচেঙ্কো: লেডি ডেথ (দ্বিতীয় পর্ব)

  •  
  •  
  •  
  •  

একজন লুডমিলা পাভলিচেঙ্কো এবং ৩০৯ জন জার্মান
কিন্তু লুডমিলা পাভলিচেঙ্কো নামে এক নারী স্নাইপার ছাড়িয়ে গিয়েছেন সবাইকে। এই নারী একাই জার্মানের শিবিরে থাকা সৈনিকদের রক্ত হিম করে দিয়েছেন। তিনি একাই ৩০৯ জন জার্মান সেনার জীবন কেড়ে নিয়েছেন, যাদের মধ্যে আছে ৩৬ জন দক্ষ জার্মান স্নাইপারও। অসামান্য এই দক্ষতার কারণে জার্মান সৈনিকদের মাঝে লুডমিলা পরিচিত ছিলেন ‘লেডি ডেথ’ নামে। লুডমিলা পাভলিচেঙ্কো শুধু সোভিয়েত ইউনিয়নের নয়, সারা বিশ্বের সবচেয়ে সফল স্নাইপারদের একজন আর পৃথিবীর সেরা নারী স্নাইপার।

স্কুলজীবনে শখের বশে শার্প শুটিংয়ের হাতেখড়ি লুডমিলার। পড়াশোনার চেয়ে খেলাধুলাই তাকে বেশি টানতো। কিন্তু বাবা-মায়ের চাপে স্কুল-কলেজ শেষ করে ১৯৪১ সালে জার্মানরা যখন সোভিয়েত আগ্রাসন শুরু করে, তখন কিয়েভ স্টেট বিশ্ববিদ্যালয়ে ইতিহাস নিয়ে পড়ছিলেন লুডমিলা। জার্মান আক্রমণে কিয়েভের অন্য সব প্রতিষ্ঠনের পাশাপাশি গুরুতর ক্ষতিগ্রস্ত হয় বিশ্ববিদ্যালয়টিও। সেনাবাহিনীর ডাকে সাড়া দিয়ে স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে দলে সোভিয়েত তরুণরা সেনাবাহিনীতে যোগ দিতে থাকে। লুডমিলা পাভলিচেঙ্কো যোগ দিতে আবেদন করলেন। স্নাইপার হিসেবে তার আবেদন একরকম হেসেখেলেই উড়িয়ে দিয়েছিলো সেনা কর্মকর্তারা। তাদের তখনও কোনো ধারণাই ছিলো না এই লুডমিলাই হয়ে উঠবেন বিশ্বের সেরা নারী স্নাইপার।

স্নাইপার হিসেবে যোগদান
লুডমিলা তার আবেদনের সাথে যোগ করলেন তার স্কুলজীবনে শার্প শুটিংয়ের সার্টিফিকেটও। কিন্তু নারী হওয়ায় তার আবেদনকে একরকম গুরুত্বই দিচ্ছিলেন না সোভিয়েত সেনা কর্মকর্তারা। তারা লুডমিলাকে নার্স হিসেবে যোগ দেওয়ারও পরামর্শ দেন। কিন্তু লুডমিলা দৃঢ়প্রতিজ্ঞ। তিনি স্নাইপার হিসেবে যোগ দিতেই চান। উপায় না দেখে সোভিয়েত মিলিটারির ২৫তম ইনফ্যান্ট্রি ডিভিশনে শুটার হিসেবে সাময়িক নিয়োগের ব্যবস্থা করা হয়। ট্রেনিং নেওয়ার পর্যাপ্ত সময়ও ছিলো না। নিয়োগের পরেই তাকে চলে যেতে যেতে হয় রণক্ষেত্রে। ১৯৪১ সালে আগস্ট মাসে তাকে এবং তার দলকে বেলায়েভকা নামক গ্রামের কাছেই এক পাহাড়ে লুকিয়ে থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়। নতুন স্নাইপার হওয়ায় এবং রণক্ষেত্রে পূর্ব অভিজ্ঞতা না থাকায় লুডমিলার সাথে আরো একজন দক্ষ স্নাইপারকে নিযুক্ত করা হয়। কিন্তু ভাগ্যের নির্মম পরিহাস সেই স্নাইপার ঠিকঠাক পজিশন নেওয়ার আগেই জার্মান বুলেট কেড়ে নেয় তার প্রাণ। এই ঘটনা লুডমিলাকে প্রচন্ডভাবে আঘাত করে। তিনি প্রতিজ্ঞা করেন, মাতৃভূমিকে শত্রুমুক্ত করার আগে ঘরে ফিরবেন না।

[চলবে]

১১/১০/২০২০, ১১.৩৫ PM

লুদমিলা পাভলিউচেঙ্কো: লেডি ডেথ (প্রথম পর্ব)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *