শূন্য প্রেক্ষাগৃহ

  •  
  •  
  •  
  •  

“তোমার জন্য অস্থিরতা
বুকের ভেতর আগুন,
তোমার জন্য স্বপ্ন দেখা
হরেক রকম ফাগুন।
তোমার জন্য বর্ণহীন আজ
বৃষ্টি ছূয়ে জল,
তোমার জন্য দিনের শেষে
বৃষ্টি অবিরল।
তোমার জন্য স্বপ্ন পোড়াই
ধোয়ায় ওড়ে ইচ্ছে,
তোমার জন্য দিবা রাতি
ভালই কেটে যাচ্ছে।”

কোন কোন সময় আমারো প্রচন্ড ইচ্ছে করে ভালবাসতে। হিরণ্ময় সকাল, উদাস দুপুর আর অলস রাত গুলো কাটিয়ে দেই অপেক্ষার প্রহর গুনে গুনে। শ্যাওলা ধরা এই চারদেয়ালের ঘরের পলেস্তারার মত, হৃদয়ের ভালোবাসার আবরনটুকু খসে পড়ছে দিন দিন। তার ফাঁকে উকিঁ মারছে আমার বিবর্ন চেতনা।

কখনও ইচ্ছে করে রচনা করি ভালোবাসার শ্বেত কাব্য। কিন্তু চেয়ে দেখি অ-নে-ক আগেই উইপোকায় খেয়েছে হৃদয়ের পান্ডুলিপি। কখনও কখনও চোখের সেলুলয়েডে ভেসে উঠে শাড়ির আঁচল, কাঁচের চুড়ি, চন্দনের টিপ। খুব বেশি ছুঁয়ে দেখতে ইচ্ছে করে কারও চোখ, নাক, ঠোঁট পরম আদরে। কিন্তু আমার আঙুলের ডগাগুলো ক্রমাগত নুয়ে আসে। আমার হৃদয়ের জানালায় উঁকি মারেনি এলোকেশী ভালোবাসা। তরল জ্যোৎস্নায় ছুঁয়ে দেখিনি তার চুল। কতো রাত ঐ চাঁদের পাশে একেঁছি এক জ্যোতস্নামাখা মুখ। গর্বিত মানসীর মতো সে স্পর্শ করেছে আমার অস্তিত্ব, জাগিয়েছে রন্দ্রে রন্দ্রে শিহরন।

আমি ভালোবাসার জন্য উন্মত্ত হয়েছি। পরক্ষনেই শুনেছি ভালোবাসা আমার জন্য নিষিদ্ধ। চেয়ে দেখি মেঘে ঢেকেছে সেই জ্যোৎস্না মাখা মুখ। আমি চর জেগে ওঠার মতো বেদনায় চৌচির হয়েছি। আমার সমস্ত শূন্যতার ফোঁকড় গলে পানি গড়িয়ে পড়ছে টুপ টুপ করে। আমি পলিথিনে মোড়ানো ভ্যাকুয়াম প্যাকেটের মাঝে খুঁজি বিবর্ন, হলুদ ভালোবাসা।

হৃদয়ের স্বপ্নকাতর নীলাভ অংশটুকু পুড়িয়ে ধোঁয়ায় আচ্ছন্ন করি আমার পৃথিবী। অস্পষ্ট হয়ে ওঠে সেই মুখ। তারপর নীরব নিকষ অন্ধকারে মৃত্যুর সঙ্গে খেলি শব্দ চয়নের খেলা আর হৃদয়ের পাতায় লিখে রাখি, “এখনও বেঁচে আছি আমি। এই বিবর্ন, হলুদ ভালোবাসায়।”

০৪/০৭/২০১৬, ১১.৫৮ PM

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *