শেষ বিকেলের মেয়ে (দ্বিতীয় পর্ব)

  •  
  •  
  •  
  •  

একদিন পহেলা ফাল্গুন আর একই সাথে নবীন বরন, সেই উপলক্ষ্যে শাড়ি পরেছিলাম। বয়স আমার তখন আঠার। অপুরও তাই। বান্ধবীর বাসায় গেলাম। ওখান থেকে কলেজ প্রোগ্রাম। সন্ধ্যে হওয়ার আগেই বান্ধবীরা হুড়মুড় করে ভাগতে শুরু করল। মাগরেব এর আগেই যে ঘরে ফেরা চাই। প্রোগ্রামে ভিড় বাড়ছিল। বাড়ছিল অসভ্য ছেলেপিলেদেরও ভিড়। আমার তো অপু আছে। আমার ভয় কী? তার উপর ব্যান্ড এসেছে। মিস করি কী করে। গান পাগল ছিলাম। বাবার মত। আমাদের বাসায় থরে থরে সিডি আর গানের ক্যাসেট। মফস্বল শহরে আর কারুর ঘরে কম্পিউটার ছিলনা। আমার বড় ভাইয়ের ছিল। ভাইয়া তখন ফিজিকস পড়ছে শহরে, জাহাঙ্গীর নগর বিশ্ববিদ্যালয়ে।

যাই হোক, সেদিন একটু অন্ধকার নামতেই এমন ভিড় বাড়ছিল। লাইটিং ছিল পুরো কলেজ মাঠে ,তাতে অবশ্য অন্ধকার ঢেকেও ঢাকেনি। আমি আশেপাশে তাকিয়ে দেখি অপু নেই। আমাকে রেখেই কী করে চলে গেল সে। নাকি সে আসেই নি। আমি তো নিশ্চিন্তে বসে ছিলাম অপু আশেপাশেই আছে ভেবে। আর ভেবেছি আমি ওকে না খুজলেও সন্ধ্যে নামলেই ও ঠিকই আমাকে খুঁজে নেবে। এই ভীড় ঠেলে আমি এখন বেরুব কী করে তার উপর জীবনে প্রথমবার শাড়ি পরা। হাঁটতে গেলেই মুসিবত। রিকশাই বা কে ঠিক করে দেবে। অপুর উপর রাগে অভিমানে আমার গা জ্বলতে লাগল যেন অপুর আজন্ম দায়িত্ব ছিল আমাকে ঠিকমত পৌঁছে দেওয়া। ভীড় ঠেলে বেরুতে গিয়ে চূড়ান্ত অসভ্যতার স্বীকার হলাম। কাজটা কে করেছে দেখিনি। আমার কান্না পেয়ে গেল। এত বিশ্রি একটা অনুভূতি। বের হতেই পারছিনা। কাঁদতে শুরু করলাম।

ভীড়ের মধ্যে ক্লাসমেট একজনের সাথে চোখাচোখি হলো, সে আমার বেহাল অবস্থা দেখে এগিয়ে এসে আমাকে উদ্ধার করল। হাসান নাম ছিল ছেলেটার। আমাকে দু হাতে প্রায় আগলে বের করে নিয়ে এলো। বের হয়ে দেখি ভীড়ে ঠেলাঠেলিতে শাড়ির বেহাল দশা। হাসান রিকশা ঠিক করে দিতে চেয়েছিল, আমি মানা করলাম। চোখ মুছতে মুছতেই আবার টলমল করে উঠছিল তখন। কাজল মাশকারা গালের হালকা মেকাপ সব ধুয়ে টুয়ে আমাকে নিশ্চয়ই ভূতের মত দেখাচ্ছিল। আমার মন বলছিল অপু আছে। আশে পাশেই কোথাও আছে। আমাকে না নিয়ে অপু যেতেই পারেনা। অপু আসলেই ছিল। কলেজ গেটের ঠিক মুখেই অপু দাড়িয়ে ছিল। ভীড়ের মধ্যে আমাকে খুঁজে পায়নি। হাসান অপুকে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখে অর্থবোধক একটা হাসি দিল। আমি হাসানকে ধন্যবাদ দিয়ে বিদায় জানালাম।

[চলবে]

১৬/০২/২০১৯, ১০.৪৬ PM

শেষ বিকেলের মেয়ে (প্রথম পর্ব)

শেষ বিকেলের মেয়ে (তৃতীয় পর্ব)

শেষ বিকেলের মেয়ে (চতুর্থ পর্ব)

শেষ বিকেলের মেয়ে (পঞ্চম পর্ব)

শেষ বিকেলের মেয়ে (ষষ্ঠ পর্ব)

শেষ বিকেলের মেয়ে (সপ্তম পর্ব)

শেষ বিকেলের মেয়ে (শেষ পর্ব)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *