সম্পর্কের সমীকরণ

  •  
  •  
  •  
  •  

সেদিন এক ভাইয়ের সাথে কথা হচ্ছিলো। সিনিয়র হলেও যথেষ্ট বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক। বিভিন্ন বিষয়ে তার সাথে প্রায়ই আলাপ হয়। কথাবার্তার এক ফাঁকে ভাই যা বললেন, তার সারমর্ম এই দাঁড়ায় যে,
– “পৃথিবীর প্রতিটি সম্পর্ক ট্রানজেকশনাল। প্রতিটি সম্পর্কের মাঝে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে বা প্রচ্ছন্নভাবে গিভ এন্ড টেইকের বিষয় থাকে। এটার অন্যতম উদাহরণ হল বিয়ে, বিশেষ করে অ্যারেঞ্জড ম্যারেজ। লাভ ম্যারেজেও কখনও কখনও এমনটা দেখা যায় যখন সম্পর্ক বিয়ের দিকে গড়ায়। ছেলে কেমন সেটা সেকেন্ডারি কনসার্ন, ছেলে কি করে সেটাই প্রাইমারি কনসার্ন। ছেলের ফ্যামিলি কেমন, বাড়ি আছে কিনা, আত্মীয়-স্বজনের স্ট্যাটাস, সবমিলিয়ে ওভারঅল একটা প্যাকেজ হিসেবে অ্যারেঞ্জড ম্যারেজ হয়ে থাকে। এর মানে বিয়েটা আসলে মানুষের আদলে একটা প্যাকেজের সাথে হচ্ছে। প্যাকেজের কোন একটা দিকও যদি প্রত্যাশার সাথে খাপ না খায়, তখন বেরিয়ে আসে ভালোবাসার আসল চেহারা।”

আমি অ্যারেঞ্জড ম্যারেজের বিপক্ষে নই বরং এটা আমার কাছে তুলনামূলক নিরাপদ অপশন লাইফ পার্টনার বাছাইয়ের মতো ক্রুশিয়াল ইস্যুতে। ওনার কথা শুনে অবাক হলাম। তার মতে,
– “অ্যারেঞ্জড ম্যারেজে মেয়েরা ক্যারিয়ারসহ প্রতিষ্ঠিত বর পায়। সচ্ছল সংসার পায়। ছিমছাম গোছানো জীবন পায়। সবই রেডিমেইড। তারা কিন্তু এক হিসেবে তাদের স্বামীদের সুখের দিনের সঙ্গী। স্ট্রাগল পিরিয়ডে তারা কিন্তু পাশে ছিল না। তাই যখন তারা তাদের পার্টনারদের ‘ভালোবাসি’ বলে, সেটা আসলে শুধু স্বামীকে বলে তা নয়, স্বামী’র ক্যারিয়ার, সচ্ছলতা, সুখের নিশ্চয়তা, নিরাপদ ভবিষ্যৎ সবমিলিয়ে টোটাল প্যাকেজটাকে আসলে ‘ভালোবাসি’ বলে। প্যাকেজগুলো ছাড়া শুধু মানুষটাকে ভালোবাসা কতোটা সম্ভব তার পার্টনারের পক্ষে?

এই পর্যায়ে ভাই সরাসরি আমাকে উদ্দেশ্য করে বলেন,
– “তুই তো সরকারী চাকরী পাইছিস। এখন দেখবি কত প্রস্তাব আসে তোর জন্য। এরা কেউ তোর নির্ঘুম রাতের সঙ্গী ছিল না। এরা কেউ দেখেনি তোর স্যাক্রিফাইস। এরা কেউ জানে না কতোটা কষ্ট স্বীকার করে আজ তুই এই অবস্থানে। এরা সবাই কেবলই তোর সুখের, তোর সাফল্যে ভাগ বসানোর জন্য লালায়িত। এদের কারও কাছেই তুই মানুষটা মুখ্য না। এদের কাছে ফ্যাক্ট হল তোর ক্ষমতা, তোর সোশ্যাল স্ট্যাটাস, তোর ডেজিগনেশন। এটাই ফ্যাক্ট। ভাবতে পারিস? একজন মানুষ কেবলমাত্র কলমের খোঁচায় তোর সাফল্যের সমান ভাগীদার হয়ে গেল সারাজীবনের জন্য, যে সাফল্য অর্জনে তার কোনই ভূমিকা ছিল না? ”
ইন্টারেস্টিং পয়েন্ট অফ ভিউ! সবকিছুই কি আসলে শর্তসাপেক্ষ?

০৫/০৭/২০২০, ১১.৩৫ PM

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *