সুখ চিহ্ন

  •  
  •  
  •  
  •  

রনবীর সিং আর দীপিকা পাড়ুকোনের বিয়ের কার্ড দেখে আমার সেইদিন টার কথা মনে পড়ছিলো, যেদিন দীপিকা একটা ইন্টার্ভিউ তে এসে কাঁদতে কাঁদতে রনবীর কাপুর দ্বারা তার প্রতারিত হওয়ার গল্প বলছিলো। সেই সময়টাতে দীপিকা বলিউডে ততোটা প্রতিষ্ঠিত ছিলোনা। ককটেল মুভির রিলিজ হয়েছিলো জাস্ট। তারপরে ব্রেকাপের ধাক্কা, তারপর “ইয়ে জাওয়ানী হ্যায়ন দিওয়ানী, রাম লীলা, চেন্নাই এক্সপ্রেস, হ্যাপি নিউ ইয়ারের মতোন ব্যাক টু ব্যাক হিট ছবিগুলাতে অভিনয় করলো। এখন বলিউডের লিডিং অ্যাক্ট্রেস, হলিউডেও ডাক পাবে। আর একের পর এক না বদলে সরাসরি গাঁটছড়া বাধবে একজনের সাথে। ক্লাসি নারী বলতে, উপরের ব্যাপারগুলাকেই বুঝি।

আর রনবীর কাপুর? এর মধ্যে চৌদ্দটা গফ চেঞ্জাইয়াও ভাইয়ে সুবিধা করতে পারলোনা কারো সাথে। আর ফিল্ম কতগুলা ব্যাক টু ব্যাক ফ্লপের পরে, ২০১৭-১৮ তে এসে একজন মোটামুটি হিট নায়কের তকমা পাইছে। সে সরে গেলো, দীপিকার লাইফ সুগম হয়ে গেলো। প্রতারকদের সরে যাওয়ার ফজিলত এইটাই। প্রতারক গুলা সরে গেলে আসল মানুষের আসার পথ সুগম হয়, সুন্দর হয়। প্রতারকেরা আফসোসের বৃত্তপথেই চক্রাকারে ঘুরতে থাকে। এক সময় খেই হারিয়ে সময়ের অতল গহব্বরে হারিয়ে যায়। সফল হতে পারে, কিন্তু মানুষ পায়না সফলতা উপভোগ করার। উপরের লেখাগুলা লেখার উদ্দেশ্য হচ্ছে, সবসময় মনে রাখবেন মানুষ আমাদের জীবনে দুইটা কারনে আসে হয় সে ভালোবাসার মানুষ হয়ে থাকে, নাইলে শিক্ষা।

বিষাক্ত লোকজন জীবনে আসবে, একটা শিক্ষা দিবে চলে যাবে। আপনাকে ঠিক করতে হবে, সে বিষাক্ত লোকের সাথে তাল মিলিয়ে নিজের জীবনকে দুর্বোধ্য করে তুলবেন, নাকি সেইখান থেকে শিক্ষা নিয়ে জীবনকে আলোকিত করবেন। কেউ আমাদের জীবনে হুদাই আসেনা। প্রত্যেকটা মানুষকে আল্লাহতালা আমাদের জীবনে পাঠান যেকোনো একটা কারনে। একজন মানুষ প্রতারনা করেছে বলে জীবন অবশ্যই সেখানে শেষ না। বরং দ্বিগুণ উদ্দ্যমে শুরু। মনে রাখবেন, যে আপনাকে অযোগ্য বলে ছেড়ে চলে যায়, তাদের জীবনের সবচেয়ে বড় হার হবে আপনাকে সুখে থাকতে দেখা। আপনি যদি সুখে থাকেন, সেইটা আপনার শত্রুদের নিজের ব্যর্থতার চেয়েও বেশি আঘাত করবে। আর নিজেকে যোগ্য করে তুলতে মানুষ চাইলেই পারে, এইটা আমি মনে প্রানে বিশ্বাস করি।

অনেক আগে চিতা বহ্নিমান বইতে একটা লাইন পড়েছিলাম,
– “আমি অযোগ্য জেনে যে আমাকে ভালোবাসলোনা, যোগ্য আমাকে ভালোবাসার কোনো অধিকার তার নেই।”
এইটাই পয়েন্ট। সময় হলে সব পেয়ে যাবেন। উদাহারনস্বরূপ, দীপিকার দিকেই তাকান। এখন সব পেয়ে গ্যাছে, পারফেক্ট লাইফ, পারফেক্ট পার্টনার, পারফেক্ট ক্যারিয়ার। সব হার্ড ওয়ার্ক আর অপেক্ষার ফল। আপনি সুখে থাকার চেয়ে বড় আর কোনো টনিক নেই সেই বিষাক্ত মানুষগুলাকে অসুখী দেখার জন্য। আর প্রতারকেরা সবসময়ই অপ্রাপ্তি নিয়েই থাকে। নিজেকে ভালোবাসুন, নিজের জন্যে কিছুদিন বাচুন। বাকিটা প্রকৃতিই দিয়ে দেবে।

০৮/০৯/২০২০, ১১.১১ PM

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *