মিস ভ্যালেন্টাইন

ভ্যালেন্টাইন ডে হ্যাজ গন। বয়েজ-গার্লস, ওয়াইফি- হাবি, জাবি সবার ঘুম হারাম ছিলো এই দিনটাকে নিয়ে। একদল এই চিন্তায় যে এইবার তাকে কিভাবে খুশি করা যায় আরেকদল এই চিন্তায় যে দেখি ও কি করে আমার জন্য। কোনটা কোনদল এটা ক্লারিফাই করে দিয়ে আমি কোনো কোন্দলে জড়াতে চাইনা তাই নিজেরাই বিবেচনা করে নেন। তবে এ বিষয়ে একটা পার্সোনাল এক্সপেরিয়েন্স শেয়ার করতে চাই। গতবছর ভ্যালেন্টাইন ডে’র দুইদিন আগে ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ড গিয়েছিলাম একটা কাজে। ভিতরে ঢুকে আমি পুরাই টাস্কিত। মেয়েদের আংটির ডিসপ্লের সামনে শত শত পুরুষ। অথচ ছেলেদের আন্টির ডিসপ্লের সামনে একটা মাছিও নাই। আমি ভাবি, কেম্নে কি। নতুন কোনো ট্রেন্ড আসছে নাকি। ছেলেরা সব মেয়েদের আংটি কিনে কেন? একটু পর স্মরণে আসলো দুইদিন পর তো পোলাদের মরণ ডে। প্লিজ গার্লস উত্তেজিত হবেন না। কিন্তু কেন? Continue reading “মিস ভ্যালেন্টাইন”

সত্য বচন (পঞ্চম পর্ব)

পেছনের গল্পটা অবর্ণনীয় নয়। হাতের রেখা যদি ভাগ্য বলে দিতো তবে সেই কবেই আমি আমার হাতের রেখা পড়ে ফেলতাম। ভাগ্য বদলাতাম। চিরচেনা মানে শুধু মনে প্রাণে ক্ষত বিক্ষত হয়ে একজনকে চাওয়া কিংবা পাওয়া নয়। ভালবাসা মানে তুমি এবং তোমরা যা ভাবো সেটাও নয়। ভাগ্য হচ্ছে সময়। ভালবাসা মানে যে তোমার সময়ের মূল্য দিতে জানে। ভুল কখনো মধুর হয়না। ভুলের মাশুল একদিন হলেও দিতে হয়। কাউকে না কাউকে দিতেই হয়। প্রিয়জন মানে স্বার্থের প্রয়োজনে পাশে থাকা বা পাশে রাখা নয়। প্রিয়জন মানে অলস সময়ে, প্রয়োজনে, অপ্রয়োজনে, একজন বা কয়েকজন।

পরিব্রাজক মানে ভ্রমণকারী। বেঁচে থাকার প্রয়োজনে, কারণে বা অকারণে, Continue reading “সত্য বচন (পঞ্চম পর্ব)”

হারায়ে খুঁজি

জীবনটা এমনই, কিছু মানুষ নিজের মতো কিছু করতে চায়। কিন্তু অন্যে তার পিছে বাশ দেয়। কিছু মানুষ থাকে যারা বাঁশ দেওয়া মাত্র নিজেও রকেট খায়। কিছু মানুষ অন্যকে বাঁশ, রকেট, এ্যাটমবোমা মারলেও তাদের কিছু হয় না কারণ তাদের কেউ ধরতে ছুতে পারে না। আর কিছু মানুষ নিজেরাও কিছু করে না অন্যেরা তাদের কিছু করে না। তবে গণধোলাই থেকে কিছুতেই বাইরে থাকতে পারে না। লাস্টের টাইপ হচ্ছে সবচেয়ে হতভাগা।

আমাকে কারো মনে রাখার কোন দরকারই নেই। আমি হারিয়ে যেতে চাই। Continue reading “হারায়ে খুঁজি”

দুয়ার হতে অদূরে

আপনার সামনে বা পাশে বসা বা সাথে থাকা কিংবা বাস করা মানুষটির সাথে আপনার করা আচরণের সাথে তার আচরণের মিল পাচ্ছেন না ইদানীং- এমনটা প্রায়ই হয়, হচ্ছে, ভবিষ্যতে হয়ত আরো বেশী হবে। আপনি চাইছেন তার দৃষ্টি আকর্ষণ করতে, পারছেন না। আপনি বলছেন হাসির কথা, সে থাকছে ভ্রু-কপাল কুঁচকে। আপনার যখন তার মনোযোগ দরকার তার মনোযোগ অন্যদিকে। আপনি যখন কোকিলের সুরে ডাকছেন তখন জবাব পাচ্ছেন ঘেউঘেউ স্বরে। আপনি চাচ্ছেন স্পর্শ, পাচ্ছেন মুখ ঝামটা আবার আপনার হয়ত মন খারাপ, সে আছে বেশ ফুরফুরে। আপনার কপালে চিন্তার বলিরেখা, তার চোখে মুখে চাপা আনন্দ।

মানুষটি আসলে কেবল আপনার সঙ্গেই আছে, অধিকারে আর নেই। Continue reading “দুয়ার হতে অদূরে”

বিসর্জন

আমি – বিসর্জন তো কষ্টের তবে ওরা আনন্দ করে কীভাবে?
গুরু – যে বিসর্জন আবার আগমনকে নিশ্চিত করে সে বিসর্জনও আনন্দের।
আমি – তবে কেউ যদি আমাদের ছেড়ে চলে যায় আমাদের বুক ফেটে যায় কেন? কেন আমরা কাঁদি-উৎসব করি না।
গুরু – আমাদের সে বিদায়ে আগমন নিশ্চিত না। তাই ভয় হয়, আমরা স্থায়ী বিয়োগ বেদনার উৎকণ্ঠতায় কাঁদি। আচ্ছা মুসলমানেরা মরলে কি বলে?
আমি – ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্নাইলাইহি রাজিউন।
গুরু – মানে জানো?
আমি – নিশ্চয় আমরা আল্লাহ্‌র কাছ থেকে এসেছি এবং তাঁর কাছেই প্রত্যাবর্তন করবো।

গুরু – এই যে আল্লাহ্‌র কাছে থেকে আসা- মানে আল্লাহ্‌র কাছ থেকে বিয়োগ; Continue reading “বিসর্জন”

প্ল্যান

মেধাবী মানুষজন মুখে বা হাতে কিছু খেলেন না। এঁরা বুদ্ধিবলে খেলেন। বেশিরভাগ প্লানই খুব সুক্ষ্ম ও সুনিপুণ দক্ষতায় ধীরে সুস্থে বাস্তবায়ন করেন। বেশিরভাগ প্লানই সময় নিয়ে, দীর্ঘ মাস্টারপ্লান নিয়ে করেন। তবে সাধারণত কোন উদ্দেশ্য বাস্তবায়নে সিঙ্গেল প্লানে উনারা থাকেন না। প্লান এ, প্লান বি অথবা প্লান সি এরকমই ডুয়াল অথবা থ্রি লেয়ারের প্লান প্রস্তুত করেন। প্লান এ সাকসেস না হলে প্লান বি, প্লান বি সাকসেস না প্লান সি। তিনটার একটা সাকসেস হবেই হবে। বলছিলাম দীর্ঘমেয়াদি মাস্টারপ্লান। হুট করে কোন পুকুর ভরাট করে ফেললে চোখে পড়ে। কিন্তু বছরের পর বছর একটু একটু পরে ভরাট করলে চোখে তেমনটা পড়ে না। সো আলোচনাও হয় না তেমন। বোকা বা অতি চালাকরা সাধারণত দীর্ঘমেয়াদী প্লান করতে পারে না। এরা হুটহাট ডিসিশন মেইক করে। যা বেশিরভাগইই বুমেরাং হয়ে ফিরে আসে। তবে মেধাবীরা এই ভুলটাই করে না। তাঁরা সাকসেসও হয় এই কারনে। Continue reading “প্ল্যান”

Page 3 of 41234