গণতন্ত্রে স্বৈরশাসন

ছয় সদস্যের আমাদের পরিবার নামক রাষ্ট্রে একসময় আব্বা ছিলেন ‘স্বৈরশাসক’! তিনি যা বলতেন তাই হতো। মাসহ আমরা চার ভাইবোন নিরীহ নাগরিক। যদিও মাঝেমধ্যেই মা-ই কিছুটা প্রতিবাদ করতেন। যদিও আব্বা পাত্তাই দিতেন না সেসব প্রতিবাদের। যতক্ষণ আব্বা বাড়িতে থাকতেন, আমরা ফিসফিস করে কথা বলতাম। পড়ার বাইরে কিছু করা মানেই ছিল ‘রাষ্ট্রদ্রোহী’ অপরাধ! অনেকটা ১৪৪ ধারা চলতো সবসময়। পড়ার টেবিল থেকে উঠার জো ছিল না। পরিবারে যেকোন সিদ্ধান্ত আব্বা-ই নিতেন। কারো মতামতের তোয়াক্কা করতেন না। কেউ তাঁর কথায় দ্বিমত পোষণ করলে বাঘের মতো হুংকার দিতেন। পুরো বাড়ি কেঁপে উঠতো। বাঘের মতো আমার সেই আব্বা, এখন যে কোন সিদ্ধান্ত নিতে সবার মতামত নেন। Continue reading “গণতন্ত্রে স্বৈরশাসন”