দাম্পত্যে সুখ

আমাদের সমাজের একটি সাধারন প্রবনতা হচ্ছে ভাত দেখে মেয়ে বিয়ে দেয়া। সোজা কথায় পাত্রের আর্থিক অবস্থা দেখে মেয়ে বিয়ে দেয়া। এক হিসাবে এটা ঠিক আছে, আরেক হিসাবে সম্পূর্ন ভুল। যে মেয়ে এসিতে ঘুমায়, জীবন যেহেতু বাংলা সিনেমা নয়, সেই মেয়ের বাবা অবশ্যই চাইবে না যে তার মেয়ে বস্তির গরমে ছটফট করুক। আবার এটাও চাইবে না যে সেই ছেলে মাতাল হয়ে এসে রাতে স্ত্রীকে পেটাক। প্যাচটা আসলে এইখানেই। আমাদের দাদাদের আমলে বিয়ে হত বিশাল মাপজোক করে। সবার না, আমি কেবল খান্দানি পরিবারদের কথা বলছি। আপনারা প্রিন্সিপাল ইব্রাহীম খা সাহেবের আত্মজীবনি পড়লে দেখবেন তার পিতার সময় কত কড়াকড়ি ভাবে মান নির্নয় করে বৈবাহিক সম্পর্ক স্থির করা হত। অবশ্য এখন এসব শুনিয়ে আর কি হবে, এ যুগে মান নির্নয় বলতে তো বোঝায় ছেলের পকেট কত ভারী আর মেয়ে দেখতে কেমন, এন্ড অফ স্টোরি!

সেই যুগে বিয়ে করতে গেলে বংশীয়রা অপর পক্ষের চৌদ্দ গোষ্ঠির খবর নিত। Continue reading “দাম্পত্যে সুখ”