শিক্ষা ও কর্ম বাজার

রাস্তার পাশের যে টংঘরের চা বিক্রেতা, তাঁর মাসিক আয় প্রায় ৩০-৩৫ হাজার টাকার উপরে। ভ্রাম্যমান ফুডকোর্টগুলোতে বার্গার, স্যান্ডউইচ বিক্রি হয়। সেটা থেকেও মাসিক গড়ে আয় হয় ৪০ হাজার টাকারও বেশি। এসব দোকান বা ফুডকোর্টগুলোতে যারা জড়িত বা ব্যবসা করছেন তাঁরা বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই মাধ্যমিকের গন্ডিই পার হননি। কিন্তু আমাদের অনার্স বা মাস্টার্স করা তরুণ-তরুণিগণ ৮-১০ হাজার টাকায় চাকরি জীবন শুরু করেন। সেই সঙ্গে হাড়ভাঙা পরিশ্রম তো আছেই। আছে মানসিক ‘নির্যাতন’। কিন্তু আমাদের ‘শিক্ষিত’ তরুণ-তরুণি এই ৮-১০ হাজার টাকার চাকরি করবেন। তবুও টংঘর কিংবা ভ্রাম্যমান ফুডকোর্টগুলোর সঙ্গে জড়াবেন না।

এর মূল কারন হলো আমাদের কথিত প্রেস্টিজ বা ইগো। Continue reading “শিক্ষা ও কর্ম বাজার”

শুধুই জননী

ওহ ঈশ্বর, আমি যে কি রকম ফিজিক্যাল পেইন এর মধ্যে ছিলাম। করম্যাককে আমি সাধারণত তিন ঘণ্টা পর পর ব্রেস্টফিড করাই, অথচ পুরো ষোল ঘণ্টা পরে ওর সাথে আমার দেখা হবে, তাই আমি রাস্তায় যেখানে পারছিলাম সেখানেই পাম্পার দিয়ে দুধ কালেক্ট করে রাখছিলাম। এবং ফাইনালি যখন করম্যাক এর সাথে দেখা হয়, তখন সে খুব ক্ষুধার্ত ছিল তাই আমি কষ্ট থেকে বেঁচেছি। উপরের কথাগুলো ব্রিটিশ আলট্রা রানার সোফি পাওয়ার এর। ১৬৬ কিলোমিটার আলট্রা ট্রেইল মন্ট ব্ল্যাংক ম্যারাথনে অংশ নেয়া সোফির কনিষ্ঠপুত্র করম্যাক এর বয়স মাত্র তিন মাস। রেইস এর প্রথম ১৬ ঘণ্টা সোফির স্বামী ট্রেইল এর বিভিন্ন এইড স্টেশন থেকে সোফির কাছ থেকে হ্যান্ড এক্সপ্রেসড বুকের দুধ সংগ্রহ করে পুত্রকে খাওয়ান। সদ্য মা হওয়ার কারণে Continue reading “শুধুই জননী”

মমতাময়ী মায়ের জন্য ভালোবাসা

মায়ের সাথে খুব বেশি লাগোয়া ছেলে আমি। ছোট বেলা থেকেই, আমার সকল চাওয়া-পাওয়া, দাবী কিংবা আবদার সবই আমার মায়ের কাছে। আমরা তিন ভাই এক বোন। প্রথম সন্তান হবার দরুন কিনা জানি না, আমি জন্মের শুরু থেকে আজ অব্দি মায়ের ভালোবাসা পেয়েই বেড়ে উঠেছি। সুতরাং চোখ বন্ধ করে নির্দিধায় বলে দেয়া যায় – মা’ই আমার বন্ধু, আবার মা’ই আমার বান্ধবী। তবে তাকে কখনো জড়িয়ে ধরে বলা হয়নি “I love u Maa”, তাকে নিয়ে কখনো আলাদা করে আহ্লাদী পোস্ট দেয়া হয়নি। বিদেশ বিভূয়ে থাকার কারনে, টেলিফোনের মাধ্যমে, এই এক জীবনে, ভালোবাসার চেয়ে মনের অশান্তি গুলোই মাকে বেশি দিয়েছি। “মা” পৃথিবীর সবচেয়ে বেশি ভরসার জায়গা বলেই হয়ত এমনটা করেছি। মা ভালোবাসে না এমন মানুষ হয় না। যার মা আছে সে পৃথিবীতে সবচেয়ে সুখী মানুষ। Continue reading “মমতাময়ী মায়ের জন্য ভালোবাসা”

নিশীথিনী

আউলাচুলের তরুণী স্মিত হাসে। টোল পড়ে গালে। কিন্তু দূর থেকে বোঝা যায় না। নিচের ঠোটের ডান দিকে ব্রাউন কালারের ছোট একটা তিল। যখন ক্লান্ত হয়, ঠোট শুকিয়ে যায়, তখন জিভ দিয়ে মাঝে মধ্যেই তা স্পর্ষ করে। লোভ হয়। ভীষণ লোভ হয় তখন। কখনো অট্টহাসিতে দেখিনি তরুণীকে। কিভাবে তার মাঝারি গড়নের শরীরটা নেচে উঠে হাসিতে জানা হয়নি। কপালে ভাঁজ পড়ে কী না, হাসির তোড়ে চোখ দুটো ছোট হয়ে যায় কী না! ঠোটযুগলের সঙ্গে চোখ দুটোও হাসে কী না। খুব সখ দেখার। খুউব।

গুনগুন করে গান গাইতে শুনেছি। কি গান সেটা শোনা হয়নি। রবীন্দ্র সংগীত কিংবা নজরুল সংগীত ভাল মানাবে বোধ হয়। Continue reading “নিশীথিনী”

অপারেশন কিলোবাইট

সমাজের উচ্চবিত্তের প্রতি মধ্যবিত্তের কখনো শ্রদ্ধাবোধ কাজ করে না। যা করে কিছুটা ভয়, বাকিটা জেলাসি। এবং জেলাসি দুর্দান্তভাবে জিগাংসমূলক। এই আত্মহমিক মানুসিক স্ট্যান্ডার্ডাবিলিটির কারনে সামাজিক ভেদাভেদ, পারস্পরিক মূল্যবোধ, একে অন্যের প্রতি আত্মজিঘাংসা বেড়েই চলেছে। সামাজিক অবস্থান নির্ণয়নে উচ্চবিত্তের অগ্রাধিকার। মধ্যবিত্তের আকাঙ্ক্ষা বা আশা থাকলেও মূলত প্রতিফলন ঘটানোর সাধ এবং সাধ্য নেই। যেমন, আমারও ওয়েস্টিনে প্রতিদিন আড্ডা দিতে ইচ্ছে করে, প্রাডো গাড়িতে চলাচল করতে ইচ্ছে করে। কিন্তু সাধ্য নেই। তাই আল সালাদিয়া হোটেলেই খাই, লেগুনাতেই যাই। এই আর্থিক বৈষম্যভেদ্য – মূলত এই শ্রেণি সংগ্রামকে যুদ্ধের ময়দানে একে অন্যের প্রতিপক্ষ করে বানিয়ে তুলছে। গ্লোবালাইজেশন তত্ত্ব অনুযায়ি – উচ্চবিত্ত ধীরে ধীরে আরও অধিকতর উচ্চবিত্ত হয়ে যাচ্ছে। কিন্তু মধ্যবিত্তের দৃষ্যত পরিবর্তন নেই। Continue reading “অপারেশন কিলোবাইট”

করোনায় করা না করা

করোনা আসায় অন্তত একটা উপকার হয়েছে। যারা দেশ না বিদেশ নিয়ে দোটানায় ছিলেন, তারা এবার মনস্থির করতে পেরেছেন। অবশ্য দেয়ালের লিখন যারা পড়তে পেরেছিলেন বা পারেন, অনেক আগে থেকেই তারা বিদেশে পাড়ি জমাচ্ছেন। লক্ষ্য করলে দেখবেন বর্তমানে অনেকেই ছেলেমেয়েদের ইংলিশ মিডিয়ামে পড়ায়। এর মধ্যে কিছু আছে ফুটানি দেখানোর জন্য, তবে বেশীরভাগ হচ্ছে বিদেশে স্থায়ী হবার প্রস্তুতি। জ্বী, জানি, অনেকে বলবেন বাংলা মিডিয়ামে পড়ে কি বিদেশে আগে স্থায়ী হয়নি, এখনো হচ্ছেনা? অবশ্যই হতো, কে মানা করেছে। কিন্তু তখন শিক্ষার একটা মান ছিল যা এখন নেই, তখন নেহায়াত গ্রাম্য স্কুল থেকে উঠে আসা একজন ছাত্রের যে মান থাকতো, এখন অনেক নামকরা স্কুলের ছাত্রদের সেই মান থাকেনা।

তো বিদেশে গেলে কি সব ঠিক হয়ে যাবে? কোন সমস্যা হবেনা? Continue reading “করোনায় করা না করা”

Page 4 of 512345