অপরাজিতা

মেয়েটা ভাঁজ খুলে দাঁড়ালো। মঞ্চের চারিদিকে অন্ধকার। ঠিক মাঝখানে আলোর নিচে দাঁড়িয়ে আছে মেয়েটা। চেহারা ঠিক বোঝা যাচ্ছে না। আলো আর ছায়া দেখা যাচ্ছে কেবল। আলোটা চোখ ধাঁধানো আলো। ছায়াটা গভীর কালো। মেয়েটি চুলের খোঁপা খুলে ফেললো। দর্শক সারিতে পিনপতন নিরবতা। কোথাও কোথাও গভীর শ্বাস শোনা যাচ্ছে। কোথাও বা ঢোক গিলার শব্দ। মেয়েটা এবার বুকের উপরে ঝুলতে থাকা শাড়ির আঁচল ফেলে দিলো। দর্শক সাড়িতে দ্রুত হচ্ছে শ্বাস। মেয়েটার সুউচ্চ বুক তৈরি করেছে বুকের নিচেই গাঢ় অন্ধকার। মেয়েটা পিছন ফিরে দাঁড়ালো। পিঠে ছড়িয়ে আছে খোলা চুল। ব্লাউজের নিচে কোমরের ভাঁজ। ভারি নিতম্বে আটকে গেছে দর্শকদের চোখ। মেয়েটা আস্তে আস্তে আবার সামনে ফিরলো। এতোদূর থেকেও মেয়েটার মুখে আলো ছায়ার ভাঁজ দেখে মনে হচ্ছে মেয়েটা মুচকি হাসছে। মেয়েটার হাত আস্তে আস্তে ব্লাউজের দিকে চলে যাচ্ছে। একটা বোতাম খুললো। মেয়েটা হাসছে এখনো। দর্শকের সারিতে চাপা চাপা নিঃশ্বাসে শোনা যাচ্ছে,
– ওয়ান মোর! ওয়ান মোর!! ওয়ান মোর!!! Continue reading “অপরাজিতা”