জারণ-বিজারণ

রমনা পার্কে প্রেমিকার সাথে বসে আছি আর বাদাম খাচ্ছি। এমন সময় দেখি একজন দ্বীনি ভাই আমাদের দিকে এগিয়ে আসছে। ভালো করে তাকায় দেখি আরে এটা না আমার আব্বা! তাড়াতাড়ি প্রেমিকার ঘাড়ে থেকে হাত সরিয়ে নিয়ে আমার আর প্রেমিকার মধ্যে দুই হাত ব্যবধানে দূরত্ব বজায় রাখলাম। প্রেমিকা আমার এই হঠাৎ অবস্থান পরিবর্তন দেখে বললো,
– “কি হইলো এতো দূরে গেলা কেন? একটু আগেই না বললা শীত শীত লাগছে”।
আমি কাচুমাচু হয়ে বললাম,
– চুপ করে বসে থাকো, সামনে যে লোক আমাদের দিকে এগিয়ে আসছেন উনি আমার আব্বা হুজুর। উনাকে দেখেই আপাতত গলা শুকিয়ে হাত পা গরম হয়ে গেছে। তাই দূরে আসছি। আর শুনো উনি সামনে এসে কিছু জানতে চাইলে বললা তুমি আমার স্টুডেন্ট। আমি তোমাকে কেমিস্ট্রি পড়াই। আর আব্বা হুজুর খুব ভালো মানুষ আর আমাকে খুব ভালবাসে। Continue reading “জারণ-বিজারণ”