বাজিগর বাজ

বাজ পাখী প্রায় ৭০ বছর জীবিত থাকে। কিন্তু ৪০ আসতেই বাজকে একটা গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নিতে হয়। এ’সময় তার শরীরের তিনটি প্রধান অঙ্গ দুর্বল হয়ে পড়ে। অঙ্গ গুলো নিম্নরূপ –
১. থাবা (পায়ের নখ) লম্বা ও নরম হয়ে যায়। শিকার করা প্রায় অসম্ভব হয়ে পড়ে।
২. ঠোঁট টা সামনের দিকে মুড়ে যায়। ফলে খাবার খুঁটে বা ছিড়ে খাওয়া প্রায় বন্ধ হয়ে যায়।
৩. ডানা ভারী হয়ে যায়। এবং বুকের কাছে আটকে যাওয়ার দরুন উড়ান সীমিত হয়ে পড়ে।

ফলস্বরুপ শিকার খোঁজা, ধরা ও খাওয়া তিনটেই ধীরে ধীরে মুশকিল হয়ে পড়ে। এই অবস্থায় বাজ পাখির কাছে তিনটে পথ খোলা থাকে – Continue reading “বাজিগর বাজ”