অল্প বয়সে করলাম বিয়া

অনেকেই কম বয়সে বিয়ের কথা শুনলে আতকে উঠেন, আমি উঠিনা। ফেসবুকের দুনিয়া আর বাস্তবতা এক না। একজন পুরুষ যদি তার স্ত্রীকে খাওয়ানো ও পরানোর সামর্থ্য রাখেন, তাহলে ঠিক কি কারনে তাকে ২১ বছর হওয়া বা বেকার বড় ভাই বা ছোট বোনের বিয়ে হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে? বিশেষ করে বাংলাদেশের মত দেশে, যেখানে পনের বছর বয়সেই পোলাপান পেকে ঝুনা নারকেল হয়ে যায়? আর মেয়েদের নিজেদের পায়ে দাড়ানোর কথা বলছেন? ‘প্রেম কুমারী’দের সম্পর্কে কোন আইডিয়া আছে? খোদ বেগম রোকেয়াকে পাউডার বানিয়ে খাইয়ে দিলেও এদের পড়াশোনা বা নিজের পায়ে দাড়ানোর ব্যাপারে উৎসাহিত করতে পারবেন না, এদের লাইফে আছে কেবল প্রেম আর বিয়ে, চ্যাপ্টার কোজ। Continue reading “অল্প বয়সে করলাম বিয়া”

যদি

★ আমি যদি পতিতাবৃত্তি নিয়ে কোন আর্টিকেল লিখি নিশ্চই আমি পতিতা নই।
★ যদি হিজড়াদের নিয়ে কোন লিখা শেয়ার দেই তার মানে আমি হিজড়া হয়ে যাইনি।
★ লেসবিয়ান বা গে নিয়ে কোন ডকুমেন্টারি ক্লিপ আমাকে কৌতুহলী করলেও দুটোর একটাও কিন্তু আমি নই।
★ এইডস নিয়ে লিখলেই কি আমার এইডস আছে নাকি?
★ যদি আমি মন খারাপ নিয়ে দুটো কথা আউড়াই তার মানে আমার সংসারে কোন সমস্যা ঘটেনি।
★ সোসাল মিডিয়াতে লিখালিখি করা মানুষজনের অবিশ্বাস্য সুন্দর বাস্তবের সাথে মিলে যাওয়া কিছু পোস্ট নিজের ওয়ালে কালেক্টেড মেনশন করে পোস্ট দিলেও ইনবক্সে নক আসে *সব ঠিক আছেতো?*
★ ডিভোর্স, এডাপশন, সেকেন্ডলি মেরিড, সেপারেশন, ব্রোকেন ফেমিলি – এসব পরিচিত শব্দের সাথে রিলেটেড প্রতিটা লিখাই যদি আমার সাথে বিলং করে তাহলেতো আমি শব্দজট। আমার জট ছাড়ানো মুশকিল। Continue reading “যদি”

তালাকনামা

তালাক সম্পর্কে ফেসবুকে মোটা দাগে বেশ কিছু লেখা পাই, যেখানে তালাকের মূল কারন হিসাবে স্বামী কতৃক যৌতুক চাওয়া, মারপিট করা আর পরকীয়াকে হাইলাইট করা হয়। ইন্টারেস্টিংলি, আমার লাইফে যে কয়টা তালাকের ইস্যু হ্যান্ডেল করেছি, এর মধ্যে উপরের ইস্যুগুলি সর্বোচ্চ ৩% হবে, আমার হ্যান্ডেল করা কেসগুলির বেশীরভাগই ছিল স্বামী-স্ত্রীর মনের মিল না হওয়া, আত্মীয়দের (বিশেষ করে ছেলে বা মেয়ের মায়ের) খোচাখুচি বা অযাচিত হস্তক্ষেপ, বন্ধুদের উসকানি (মেয়েদের ক্ষেত্রে বেশী হয়) আর কিছু কেস যা কোন ক্যাটেগরিতেই পড়েনা, ‘অজ্ঞাত রোগে মৃত্যু’র মত অবস্থা আরকি।

তালাকের ক্ষেত্রে আমার একটা ইন্টারেস্টিং অবজার্ভেশন আছে, Continue reading “তালাকনামা”

সম্পর্কের সমীকরণ

সেদিন এক ভাইয়ের সাথে কথা হচ্ছিলো। সিনিয়র হলেও যথেষ্ট বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক। বিভিন্ন বিষয়ে তার সাথে প্রায়ই আলাপ হয়। কথাবার্তার এক ফাঁকে ভাই যা বললেন, তার সারমর্ম এই দাঁড়ায় যে,
– “পৃথিবীর প্রতিটি সম্পর্ক ট্রানজেকশনাল। প্রতিটি সম্পর্কের মাঝে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে বা প্রচ্ছন্নভাবে গিভ এন্ড টেইকের বিষয় থাকে। এটার অন্যতম উদাহরণ হল বিয়ে, বিশেষ করে অ্যারেঞ্জড ম্যারেজ। লাভ ম্যারেজেও কখনও কখনও এমনটা দেখা যায় যখন সম্পর্ক বিয়ের দিকে গড়ায়। ছেলে কেমন সেটা সেকেন্ডারি কনসার্ন, ছেলে কি করে সেটাই প্রাইমারি কনসার্ন। ছেলের ফ্যামিলি কেমন, বাড়ি আছে কিনা, আত্মীয়-স্বজনের স্ট্যাটাস, সবমিলিয়ে ওভারঅল একটা প্যাকেজ হিসেবে অ্যারেঞ্জড ম্যারেজ হয়ে থাকে। এর মানে বিয়েটা আসলে মানুষের আদলে একটা প্যাকেজের সাথে হচ্ছে। প্যাকেজের কোন একটা দিকও যদি প্রত্যাশার সাথে খাপ না খায়, তখন বেরিয়ে আসে ভালোবাসার আসল চেহারা।” Continue reading “সম্পর্কের সমীকরণ”

বিচ্ছেদ-অবিচ্ছেদে দিনগুজরান

আজকাল বিচ্ছেদ ব্যাপারটা এত সস্তা হয়ে গেছে যে আনফ্রেন্ড কিংবা ব্লক করে দেয়াটাই সম্পর্কের দফারফার পন্থা হয়ে দাঁড়িয়েছে। একটা সম্পর্ক গড়ে উঠবার ব্যাপারটাও একই রকম সস্তা হয়ে গেছে যেন ফ্রেন্ডলিস্টে থাকা মানেই সম্পর্ক থাকা। বিচ্ছেদ বা সম্পর্ক বলতে এখানে শুধু বিয়ে কিংবা প্রেমসংক্রান্ত বিষয়গুলোর কথা বলছি না। বরং সব ধরনের সম্পর্কের ক্ষেত্রেই এই বিষয়গুলো সত্য। ফেসবুকে আনফ্রেন্ড কিংবা ব্লক করার মাধ্যমেই বহুদিনের গড়ে ওঠা একটা সম্পর্কের উপর যতিচিহ্ন বসিয়ে ফেলা যায়? তবু আমরা রেগে গেলে প্রিয় মানুষদের ব্লক করে দেখছি, কেউ ব্লক করে দিলে চূড়ান্ত অপমান মনে করে নিজের ইগোর কারণে আর তার সাথে যোগাযোগ করছি না কখনোই। অতীতেও যে দীর্ঘদিনের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কগুলোতে ঝগড়া, মনোমালিন্য হতো না তেমনও নয়। বন্ধুবান্ধবদের মধ্যে তো মারামারি পর্যন্ত হতো। Continue reading “বিচ্ছেদ-অবিচ্ছেদে দিনগুজরান”

প্রতিবন্ধী এক প্রজন্মের কথা

অস্বাভাবিক এক প্রজন্ম গড়ে উঠছে দেখছি। কি হচ্ছে আসলে এসব। কয়েকদিন আগে এক ছেলে নিজের বাবার লাশ কাঁধে নিয়ে কবরের দিকে যাচ্ছে। সেই ছবি ফেসবুকে আপলোড দিয়েছে। ক্যাপশন- “আমি এবং আমার কাঁধে বাবার লাশ, কবরের দিকে যাচ্ছি সবাই দোয়া করবেন।” এক মেয়ে বসে ছবি তুলে ফেসবুকে আপলোড দিয়েছে। ক্যাপশনে ফটো ক্রেডিট হিসেবে লিখেছে- “প্রতিবন্ধী”। ছবিতে কমেন্ট দিলাম – এতদিন জানতাম “প্রতিবন্ধী স্টাইল” ফটোশুট হয়, কিন্তু ফটোগ্রাফার “প্রতিবন্ধী” হয় এই প্রথম শুনলাম। মনে আছে, রমজানের সময় তারাবীহর নামাজে সেজদারত এক মেয়ের সেলফির কথা? কতটা অসুস্থ হলে এমন কাজ করা যায়। কিছুদিন আগে দেখলাম এক ছেলে তার মায়ের জন্য খোড়া কবরের পাশে দাঁড়িয়ে সেলফি তুলছে। seriously। Continue reading “প্রতিবন্ধী এক প্রজন্মের কথা”

Page 1 of 1412345...10...Last »