রিযিক

বাসার পিছনের বাগানে ভেজা কাপড় রোদে দিয়ে ঘরে ফিরে আসার সময় লক্ষ্য করলাম একটা আধা খাওয়া আপেল মেঝেতে পড়ে আছে। আপেলের উপর অসংখ্য পিঁপড়া। আপেলটা বড় ছেলেটাকে দিয়েছিলাম খেতে দুইদিন আগে। সেদিন আপেলটা মেঝেতে পড়ে থাকতে দেখে তুলে ময়লার ঝুড়িতে ফেলবো ভেবেও পরে ভুলে গেলাম। ভাবছিলাম সেদিন আপেলটা ফেলে দেওয়ার কথা আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তা’লাই নিশ্চিত ভাবে আমাকে ভুলিয়ে দিয়েছিলেন কারণ এই আপেলের বাকি অংশ ছিলো পিঁপড়াদের রিযিক। গ্রামের বাড়িতে দেখেছি অনেক সময় এক প্লেট ভাত খেতে যাবো এমন সময় হাত থেকে উল্টে পড়ে খাবারগুলো মেঝেতে গড়াগড়ি খাচ্ছে। এরমধ্যে হুট করে কোথা থেকে একটা বিড়াল এসে খাবারগুলো খাওয়া শুরু করে দেয়। Continue reading “রিযিক”

হযরত ফাতিমা (রাঃ)

হযরত আলী রাঃ, ফজরের নামাজ আদায় করার জন্য মসজিদে গেছেন। এদিকে হযরত ফাতিমা রাঃআঃ,গায়ে অত্যান্ত জ্বর অবস্থায়। ঘরের সমস্ত কাজ, শেষ করেছেন। আলী রাঃ, মসজীদ থেকে এসে দেখে, ফাতিমা কাঁদতেছেন, আলী (রাঃ) প্রশ্ন করলেন,
– ও ফাতিমা তুমি কাঁদ কেন?
ফাতিমা কোন উত্তর দিলেন না। ফাতিমা আরো জোরে জোরে কাঁদতে লাগলেন, আলী রাঃ কয়েকবার প্রশ্ন করার পরে, ফাতিমা রাঃ কাঁদতে কাঁদতে বলেন,
– ও আলী, আমি স্বপ্নের মধ্যে দেখতেছি, আমার আব্বাজান, হযরত মুহাম্মাদুর রাসুলুল্লাহ্ সাঃ আমার ঘরের মধ্যে ঢুকে কি যেন তালাশ করতেছেন ঘর থেকে বাহির হওয়ার সময়, আমি পিছন দিক থেকে, আমার আব্বাজান কে ডাক দিলাম। ও আব্বাজান আপনি কি তালাশ করতেছেন?
আব্বাজান মুহাম্মাদুর রা: (সঃ) বলতেছেন, Continue reading “হযরত ফাতিমা (রাঃ)”

কাফফারা

রুহের হায়”বলে একটা কথা আছে। “Revenge of Nature” অর্থাৎ “প্রকৃতির প্রতিশোধ” বলতে একটা ব্যাপার আছে। কোরআন এর ভাষায় যেটাকে বলে “কাফফারা”। এ সম্পর্কে বেশ কয়েকবার বলা আছে কোরআনে। এবং এটা আমাদের বিশ্বাস করতেই হবে। প্রত্যেকটা মানুষ তার খারাপ কাজের শাস্তি পায়। কেউ আগে পায়, কেউবা কয়েকদিন পরে! কিন্তু শাস্তি সে পাবেই। হয়তো ঐ বিষয় গুলোর উপর সমপ্পক স্থাপন করতে পারিনা আমরা। Exactly কোন কাজের শাস্তি পাচ্ছি আমরা তা জানি না। কাউকে কষ্ট দিয়ে, কাউকে কাঁদিয়ে, কাউকে অপমান করে, কাউকে ঠকিয়ে বেমালুম ভুলে যাই আমরা। কিন্তু প্রকৃতি ভুলে না।

বিশ্বাস করুন প্রকৃতি কিছুই ভুলে না, প্রকৃতি ক্ষমা করে না। Continue reading “কাফফারা”

নিয়ত

ঘটনা – ১
রফিক সাহেব একজন সরকারি কর্মকর্তা। ১৮ লাখ টাকা পেনশন পেয়েছেন। সম্পূর্ণ টাকা ব্যাংকে রেখেছেন যাতে ভবিষ্যতে রোগ ব্যাধি হলে যেন ডাঃ দেখাতে পারেন। ও হ্যাঁ মাস শেষে ১৮ হাজার টাকা তুলতে উনি কখনো ভুলেন না। মাত্র ৪ বছরের মাথায় উনি ক্যান্সারে আক্রান্ত হলেন।

ঘটনা – ২
আসাদ সাহেবের মা চেয়েছিল ছেলেকে সুন্দরী বউ এনে দিবে সাথে ঘর ভর্তি ফার্নিচার নিবে মেয়ের পরিবার থেকে। কারণ যদি কখনো ছেলের সামর্থ্য না হয় ঘর ভর্তি ফার্নিচার কেনার। সত্যি সত্যি ছেলের জন্য সুন্দরী বউ আর বউ এর পরিবার থেকে ঘর ভর্তি ফার্নিচার তিনি ঠিক-ই এনেছেন, কিন্তু ছেলে এখন প্যারালাইজড। এখন আর কিছুই কেনার সামর্থ্য নেই ছেলের।

ঘটনা – ৩ Continue reading “নিয়ত”

বিসর্জন

আমি – বিসর্জন তো কষ্টের তবে ওরা আনন্দ করে কীভাবে?
গুরু – যে বিসর্জন আবার আগমনকে নিশ্চিত করে সে বিসর্জনও আনন্দের।
আমি – তবে কেউ যদি আমাদের ছেড়ে চলে যায় আমাদের বুক ফেটে যায় কেন? কেন আমরা কাঁদি-উৎসব করি না।
গুরু – আমাদের সে বিদায়ে আগমন নিশ্চিত না। তাই ভয় হয়, আমরা স্থায়ী বিয়োগ বেদনার উৎকণ্ঠতায় কাঁদি। আচ্ছা মুসলমানেরা মরলে কি বলে?
আমি – ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্নাইলাইহি রাজিউন।
গুরু – মানে জানো?
আমি – নিশ্চয় আমরা আল্লাহ্‌র কাছ থেকে এসেছি এবং তাঁর কাছেই প্রত্যাবর্তন করবো।

গুরু – এই যে আল্লাহ্‌র কাছে থেকে আসা- মানে আল্লাহ্‌র কাছ থেকে বিয়োগ; Continue reading “বিসর্জন”

প্রশ্ন – উত্তর

ডক্টর জাকির নায়েক দুবাইতে সেমিনার করতে গেলেই রাহুল নামের এক ইঞ্জিনিয়ার তাঁকে হাজারো প্রশ্ন করত। প্রশ্নগুলি ছিল খুব লজিকাল এবং সুচিন্তিত। সে ঠেক দেবার জন্য নয়, জানার জন্যই প্রশ্ন করত। জাকির নায়েকও সাধ্যমত যুক্তি ও কুরান হাদীস অনুযায়ী সুন্দর উত্তর দিতেন। একবার সে প্রশ্ন করল,
– ইসলামের আল্লাহ বলেন যে শুধু তাঁর ইবাদত করতে হবে, অন্য কোনো কিছু বা কাউকে ইলাহ বা ইবাদতের যোগ্য মানলে তাকে মাপ করব না, জাহান্নামে নিক্ষেপ করব। এখন এইটা তো খুব অহংকারীর মত কথা হল। আমরা জানি, আল্লাহর মধ্যে মানবীয় কোনও সীমাবদ্ধতা বা বৈশিষ্ট্য নেই। যদি থাকত তাহলে তাঁকে আল্লাহ মানার কোনও কারণ ছিল না। যেমন তাঁর মৃত্যু নেই, ক্ষুধা নেই, ঘুম লাগে না, বিশ্রাম লাগে না, তিনি কারও পিতা নন কেউ তাঁর পিতা নয়। তিনি অনাদি অনন্ত। মানে শুরু আর শেষ দিয়ে যেমন সকল সৃষ্টি বাঁধা, তিনি সেরকম নন। বরং শুরু এবং শেষ এই দুটিরও স্রষ্টা তিনি। তাহলে এই যে অহংকারীর মত বললেন, আমাকে ছাড়া কারও ইবাদত করবা না, এইটা তো অহংকারও হল, হিংসাও হল। অহংকার আর হিংসা এগুলা তো মানুষের বৈশিষ্ট্য। এগুলি যদি উনার থাকে, তাইলে তো হল না। Continue reading “প্রশ্ন – উত্তর”

Page 1 of 512345