তবুও স্বপ্নের পাখিরা উড়ে

আপনি কারো পাতেরটা খাবেন, অন্য কেউ আপনার পাতেরটা খাবে। আপনি কাউকে মারবেন, কেউ আপনাকে মারবে। আপনি কারো কান্নার কারন হবেন, কেউ আপনার কান্নার কারন হবে। আপনি কারো সাথে বিট্রে করবেন, অন্য কেউ আপনার সাথে বিট্রে করবে। আপনি কাউকে মিডল ফিঙ্গার দেখাবেন, অন্য কেউ আপনাকে বড় সড় মিডল ফিঙ্গার ফেখাবে। যুগটাই তো মিডল ফিঙ্গার দেখার, দেখানোর। যার সাথে আপনি বেঈমানি করবেন, সে আপনার সাথে বেঈমানি করবে। খুব সিম্পল ম্যাথ। দুনিয়া পুরাটাই রসায়ন বিজ্ঞানের রাসায়নিক সমীকরণ তত্ত্ব মেনে চলে। এখানে যোজনী, অনু পরমাণু, সংকেত মেনে চলে। কোন সমীকরণই অসম্পূর্ণ থাকে না। তবে আপনি যা করবেন, সেই একই ঘটনা আপনার সাথে ঘটবে। কিন্তু যখনই ফিডব্যাক রিয়াকশনটা আপনার সাথে ঘটে বা ঘটবে, মানতে বড় কষ্ট হয় মশাই। যদিও না মেনে নেয়ার কোন অর্থ নেই, সূত্র নেই। চান আর না চান মানতে হবেই, নো ওয়ে। Continue reading “তবুও স্বপ্নের পাখিরা উড়ে”

সেদিন তুমি আমায় ডেকো

ভালবাসার শেষে ঘৃণা করতেই হবে কেন? সত্যিকারের ভালবাসায় কখনো ঘৃণা আসেনা আসতে পারেনা। ভালবাসা এবং ঘৃণা দু’টো দুই মেরুর ভিন্ন দু’টি পথ। দু’টো ভিন্ন পথে যেমন একসাথে হাঁটা যায়না। ঠিক তেমনি একই সঙ্গে ভালবাসা এবং ঘৃণা করা যায়না। নতুন কিছু আবিষ্কারের নেশা মানুষকে যেমন উন্মত্ত করে তোলে, তেমনি ভালবাসা আবিষ্কার ও প্রাপ্তির নেশায় মানুষ প্রেমে পরে। মহাকালের আবর্তে ঘুরতে ঘুরতে একটা সময় মনে হতেই পারে এই সম্পর্কটাকে কোনাভাবেই আর ক্যারি করতে পারছিনা। তবে নিজেকে আরেকটু সময় দেয়া দরকার। যে কোন কিছুই যত সহজে ভাঙা যায়, ঠিক অতটা সহজে গড়ে তোলা যায়না। তাই ভাঙার আগেই সবটা ভেবে সিদ্ধান্ত নেয়া দরকার। কাউকে আর আগের মত ভালো লাগছেনা বলেই তার সংগে যোগাযোগের সব দরজা দুম করে বন্ধ করে দিতে হবে এটা কোথায় লিখা আছে? Continue reading “সেদিন তুমি আমায় ডেকো”

গল্পের খসড়া


নিজের ঘরে প্রদীপ না জ্বললে, অন্য কেউ এসে প্রদীপ জ্বালিয়ে দিয়ে যাবে না। বরঞ্চ অন্যরা এসে জ্ঞান দিয়ে যাবে, কেনো প্রদীপ জ্বলেনি, কেনো আগে তেল কেনা হয়নি, কেনো দিয়াশলাই জোগাড় করে রাখা হয়নি। যদিও এই বিনামূল্যে জ্ঞান আহরণ করে নিজের কোনো উপকার হয় না, প্রদীপ জ্বলে, অন্ধকার ঘর আলোকিত হয় না। এই অন্ধকার ঘর নিয়ে কোথায়ও যাওয়া উচিত নয়, যার কাছেই যাবেন সেখানেও দেখবেন অন্ধকারের হোলি খেলা চলছে মহাসমারোহ। আপনার হয়তো দো-চালা ঘর অন্ধকারে, প্রদীপ বিহীন; কিন্তু যার কাছে যাবেন সেখানে গিয়ে দেখবেন, শুনবেন তাঁর রাজপ্রাসাদসম বাড়িই অন্ধকারে, প্রদীপ জ্বলেনি, অন্ধকারে নিমজ্জিত। উল্টো অপরাধবোধে ভুগবেন, কেনো তাঁর কাছে একটু আলো চাইতে গিয়েছিলেন! নিজের ঘর বাদ দিয়ে, তাঁর রাজপ্রাসাদে আলোর ব্যবস্থা করতে দুর্দান্ত ইচ্ছে হবে। Continue reading “গল্পের খসড়া”

প্রেম তুমি কি

পৃথিবীতে প্রেম বলে কিছু নেই
আছে শুধু জ্বালা,
তোর মনে চাবি বলে কিছু নেই
আছে শুধু তালা।”

মেয়েদের “ক্লোজ বান্ধবীরা” খুবই অদ্ভুত প্রাণী। ধরেন একটা ছেলের সাথে মেয়েটার প্রেম হইলো। যে ছেলের সাথে প্রেম হইলো, এই বান্ধবীরা প্রেমের শুরুতেই সেই ছেলেরে জিজু, দুলাভাই ইত্যাদি ডাইকা অস্থির কইরা ফেলবে এবং মাশাল্লাহ, মেড ফর ইচ আদার উপাধিতে সেই জুটিকে অভিনন্দন জানাবে। একদিন সেই প্রেমটা ভাংবে। এরপর সেই বান্ধবীরা অতি অবশ্যই স্টেটমেন্ট দিবে –
“রিলেশনের শুরু থেকেই এরা জানতো যে রিলেশনটা টিকবে না, কিন্তু সম্পর্ক খারাপ হওয়ার ভয়ে এতোদিন কিছু বলে নাই।” Continue reading “প্রেম তুমি কি”

জান থেকে জানোয়ার

পদ পদবীই মূল কথা। সব ক্ষেত্রেই মানুষ পদ-পদবীকে বিবেচনায় নিয়ে মানুষ বিচার করে। যতক্ষণ একজন মানুষ পদে থাকে ততক্ষণই তার গুরুত্ব থাকে। চেয়ার ছাড়া মানুষের তেমন দাম নেই। যে ধোনী বছর খানেক আগেও চরম দাপটধারী ছিলেন, অধিনায়কত্ব হারিয়ে তিনি এখন অনেকটা করুণায় দলে খেলেন। দুইবছর আগে সে স্থানে উনি ছিলেন, সেই স্থানে আর উনি নেই। মানুষটা ঠিকই আছেন, চেয়ারটা নেই। তাই সেই ধোনীও নেই। মা মারা গেলে নানারবাড়ির সাথে সম্পর্কটা কেমন যেন হয়ে উঠে। সেই অধিকারবোধটা কেন যেন আর কাজ করে না।

যে অফিসে জব করবেন, জবে থাকাকালীন সময় কলিগরা যে আচরণ করবে, ছেড়ে দিলে তা আর করবে না। রাষ্ট্রপতি থাকাকালে Continue reading “জান থেকে জানোয়ার”

অবিচ্ছেদ্য হৃদয়

খুব জানতে ইচ্ছে করে তুমি কেমন আছো? আমার দু’চোখ সারাটি দিন তোমার ঠিকানা খুঁজে খুঁজে ফিরে, আর প্রবল বৃষ্টিতে ফুলেফেঁপে ওঠা নদীর মত জলে থৈ থৈ করে। আমি তোমাকে কোথায় খুঁজে পাব? সেই যে গেলে চলে নিরবে অভিমানে, যা বলার ছিল বলে যদি যেতে হয়ত আজ আমি তোমার পাশেই রয়ে যেতাম। হয়ত নয়। কিন্তু শান্তনা পেত মন। হায় মন। পেয়ে হারানোর ব্যথা সে কি করে মেনে নেবে? এই মন গেঁথে রেখেছে তোমার চোখের না বলা সব কথাগুলি। কতটা কাজল আঁকা তোমার দু’চোখে আমি ছাড়া আর কে জানে? হু। আর আমাদের রব জানেন। তিনিতো সবই জানেন, আমি তোমাকে কতটা বেসেছি ভাল। তুমি কেন জানলে না? Continue reading “অবিচ্ছেদ্য হৃদয়”

Page 4 of 51« First...23456...102030...Last »